Main Menu

গৃহকর্মীকে ধর্ষণ মামলায় সহকারি শিক্ষক ইউনুস আলী কারাগারে

গাইবান্ধা প্রতিনিধি:গাইবান্ধা সরকারি উচ্চ বালক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ইউনুস আলীর গৃহকর্মীর ধর্ষণ মামলায় অত:পর জামিন না মঞ্জুর হওয়ায় এই অপকর্মের ৩ মাস পর মঙ্গলবার বিকেলে কারাগারে ঠাঁই হলো।
উলে¬খ্য, গাইবান্ধা জেলা শহরের থানাপাড়ায় কিশোরী এক গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগে গাইবান্ধা সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ইউনুস আলী বিরুদ্ধে ধর্ষিত কিশোরীর দাদি মালেকা বেওয়া বাদী হয়ে গাইবান্ধা সদর থানায় গত ৯ জুন (মামলা নং ৩৫) দায়ের করে। শিক্ষক ইউনুস সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের নওহাটী চাচিয়া গ্রামের হাবিবুর রহমান হবিয়ার ছেলে।
জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউর (পিপি) অ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফিক জানান, ১৫ বছরের এক কিশোরী স্কুল শিক্ষক ইউনুস আলীর বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করত। এ সুযোগে নানা প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে তিন মাস ধরে ধর্ষণ করে ইউনুস আলী। বিষয়টি কাউকে না জানাতে ধর্মগ্রন্থ ছুঁয়ে কিশোরীকে শপথ করায় ওই শিক্ষক। কিন্তু ইউনুস আলীর স্ত্রী ঘটনা জানতে পেরে গৃহকর্মী ওই কিশোরীকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। এরপর বাড়িতে গিয়ে কিশোরী তার পরিবারকে ঘটনাটি অবগত করে।
দীর্ঘদিন পালিয়ে থাকার পর ওই মামলায় ইউনুস আলী উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নেয়। মঙ্গলবার আইনজীবীর মাধ্যমে গাইবান্ধা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করে ইউনুস আলী। পরে শুনানি শেষে বিচারক তার জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। সন্ধ্যায় তাকে আদালত থেকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।






Related News

Comments are Closed