Main Menu

ওসি’র শেল্টারে চাঁদাবাজী


সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি কামরুল ফারুকের শেল্টালে শিমরাইল মোড়সহ সাইনবোর্ড এলাকার আশপাশে মুরগি রিপনের বেপরোয়া চাঁদাবাজী। শিমরাইল মোড় ফুটপাত, মুরগি পট্টি, কাচঁবাজার, সাইনবোর্ড এলাকায় বাউল শিল্পী অফিসসহ শিমরাইল বাউল শিল্পী অফিসে অসামাজিক কার্যকালাপের কারনে মুরগি রিপন চাঁদা আদায় করে আসছে। শিমরাইল মোড় ফুটপাতে প্রায় ২’শ দোকানের বেশী দোকান রয়েছে। এসব দোকান থেকে মুরগি রিপন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি কামরুল ফারুকের শেল্টারে তার সহযোগী জামাল, নাছির ও শাকিলকে দিয়ে প্রতিদিন প্রতি দোকান থেকে ২’শ টাকা করে চাঁদা আদায় করছে। শিমরাইল মোড়ে ২’শ দোকানদার থেকে প্রতিদিন ২’শ টাকা করে মোট ৪০’হাজার টাকা, মাসে ১২’লাখ টাকা চাঁদা ওসি’র নামকরে আদায় করছে মুরগি রিপন। সাইনবোর্ড ও শিমরাইল এলাকায় বাউল শিল্পী অফিস থেকে একই ভাবে প্রতিসাপ্তাহে ১০’হাজার করে চাঁদা আদায় করে মুরগি রিপন। শিমরাইল মোড় ফুটপাতে মাঝে মাঝে থানা পুলিশের অভিযানের ভয় দেখিয়ে প্রতি দোকান থেকে ২’হাজার টাকা করে এক কালিন ৪’লাখ টাকা চাঁদা আদায় করে। মুরগি রিপন বলেন এসব টাকা আমি খাইনি টাকা যা উঠে তা আমি ওসি স্যারকে দিয়ে দেই। মুরগি রিপন একসময় হিরাঝিল এলাকায় মাঠা বিক্রয় করতো। মাঠা বিক্রেতা থেকে মুরগি রিপন এখন চাঁদাবাজ হিসাবে পরিনত হয়। গত ৩/৪’বছর আগে মেয়ে নিয়ে হিরাঝিল এলাকায় ফুঁড়তি করতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশ(ডিবি)’র হাতে ধরা পরে। পরে ডিবি পুলিশকে মোটা অংকের টাকা দিয়ে ছাড়া পায়। তার পর থেকে মুরগি রিপন বেপরোয়া হয়ে উঠে। মুরগি রিপন এখন বলে থাকেন সব সময় থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশ আমার পকেটে থাকে আমাকে কেহ কিছু করতে পারবে না। কারন থানার ওসি নিজেই আমাকে শেল্টার দিচ্ছে। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরদারী জরুরী।






Related News

Comments are Closed