Main Menu

সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা -ওসির মুখে এক এসআই ফরিদের মুখে অন্য কথা ।

সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলানওগাঁ : নওগাঁর মহাদেবপুরের নওহাটা মোড় থেকে এক সাংবাদিককে জনসম্মুখে আটক করার পরও এজাহারে দিলেন মোটরসাইকেল ফেলে দিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে সঙ্গীয় ফোর্সের সাহায়তায় তাকে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় সাংবাদিকরা মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ নজরুল ইসলাম জুয়েলের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন মামলাকে হালকা করার জন্যই এমন শব্দ লেখা হয়েছে। আর মামলা দায়েরকারী এসআই ফরিদ উদ্দিন তালুকদার বলেন, এজাহারে এমন শব্দ ব্যবহার করতে না চাইলেও ওসি সারের নির্দেশেই দিতে বাধ্য হয়েছি। ওসি সার সাংবাদিকের শরীর থেকে ইয়াবা পাওয়া গেছে লেখতে বলেছিলেন। কিন্তুু আমরা বলি সার জনসম্মুখে তাকে আটক করা হয়েছে। এমন কথা লেখা ঠিক হবে না। পরে সার দৌরে পালানোর সময় আটক দেখাতে বলেন। নওহাটার বাসীন্দা আব্দুর রশিদ জানান, শুধু আমি না শত শত মানুষের মাঝ থেকে সুইট হোসেনকে আটক করা হয়েছে। সুইট হোসেন বাড়ি যাবার সময় পুলিশ তাকে থামিয়ে প্রথমে তার শরীর তল্লাশী করে। এবং তার শরীর থেকে কিছু না পাওয়ার পরে পুলিশের এক সদস্য মোটরসাইকেল দেখতে বলেন এবং মোটর সাইকেলের সিটের সামনের অংশ থেকে ইয়াবা উদ্ধার করে। এবং সুইট হোসেনকে আটক করে। এসময় সুইট হোসেন নিজে তল্লাশির ভিডিও করছিলেন তার মোবাইল ফোন দিয়ে। দৌরে পালানোর বিষয়টি সম্পূর্ণ মিত্থে।এ বিষয়ে মহাদেবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি গৌতম কুমার, সাধারণ সম্পাদক আজাদ হোসেন মুরাদ ও সাংবাদিক এ.কে. সাজু জানান, আমরা বিষয়টি জানার পরে থানাতে গিয়েছিলাম। এবং বিষয়টি নিয়ে ওসি সাহেবের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন এমন এজাহারের গদ লেখা থাকেই সেখান থেকেই হয়েছে। তবে সমস্যা নেই মামলা হালকা হয়ে এই শব্দ থাকাতে। আপনারা চিন্তা করেন না।উল্লেখ্য গত ৭ জুলাই স্থানীয় সাংবাদিক দিনের শেষে বাড়ি যাবার সময় পুলিশ তাকে থামিয়ে বলেন গোপন সংবাদ রয়েছে তার কাছে ইয়াবা আছে। এরই ভিত্তিতে তাকে তল্লাশী করে এবং তার শরীর থেকে কিছু না পাওয়ায় পরে তার মোটরসাইকেলের সিটের সামনের সামান্ন একটু ফাকা স্থান থেকে ৪৪ পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ তাকে আটক করে পুলিশ।






Related News

Comments are Closed