Main Menu

কেশবপুরে বাল্যবিয়ের অপরাধে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা

অলিয়ার রহমান, কেশবপুর প্রতিনিধিঃ যশোরের কেশবপুরে থামানো যাচ্ছে না বাল্য বিয়ে। প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে প্রতিনিয়তই  চলছে বাল্য বিয়ে। তবে উপজেলা প্রশাসন বাল্য বিয়ে বন্ধ করতে সদা তৎপর রয়েছেন বলে জানা গেছে।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ইরুফা সুলতানা জানান, করোনা ভাইরাস থেকে মানুষকে সর্তক করতে ৬ জুলাই (সোমবার) রাতে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় যায়। এ সময় জানতে পারি, উপজেলার পরচক্রা গ্রামের মধুর ছেলে সোহেল রানা (২৪) এর সাথে বুড়িহাটি গ্রামের শফিকুল ইসলামের মেয়ে ফিরোজা খাতুন (১৩)কে বিয়ে দেওয়া হয়েছে। ফিরোজা খাতুন বুড়িহাটি দাখিল মাদ্রাসার সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। সেখানে উপস্থিত হওয়ার পর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত হয়ে এ অপরাধের দায়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি আরও জানান, ৭ জুলাই উপজেলার জাহানপুর গ্রামের ইরফান আলীর ছেলে আলমগীর হোসেন (২২) এর সাথে কন্দবপুর গ্রামের আলীম হোসেনের মেয়ে বৃষ্টির (১৪) বাল্যবিবাহ হয়েছে। এমন সংবাদের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায়। এ সময় বাল্য বিবাহের অপরাধে ছেলের মা মোমেনা বেগমকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয় এবং ছেলে ও মেয়ে উভয়ই অপ্রাপ্তবয়স্ক হওয়ায় প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত দু’জনই পৃথক থাকবে এ মর্মে মুচলেকাও নেওয়া হয়।
ইরুফা সুলতানা আরও জানান, বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে এমন অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং পরবর্তীতে এই ধরনের অপরাধ যদি কেশবপুর উপজেলার অন্য কেউ করে তাহলে বাল্যবিবাহের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল ব্যক্তিবর্গকে কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে। প্রশাসন এ বিষয়ে সবোর্চ্চ নজরদারি রাখবে।
এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মিরাজুল ইসলাম, পেশকার ফারুক হোসেন, রেজাউল করিম (তারু) নাসিরউদ্দিন, জুলফিকারসহ প্রমুখ।






Related News

Comments are Closed