Main Menu

করোনা, আম্পান ও অবৈধ পশু হাটের কারনে ক্ষতির সম্মুখীন কেশবপুরের হাট মালিক

অলিয়ার রহমান, কেশবপুর প্রতিনিধিঃ যশোরের কেশবপুর পৌরসভার পশুহাট মালিকরা কোটি টাকার ক্ষতির সম্মুখীন। তিন মাসেরও বেশি সময় করোনা ভাইরাসের কারণে ক্রয়বিক্রয় বন্ধ ছিল। সপ্তাহে দুইটি হাট। ইতিমধ্যে ২৩ টি হাটে বাজারে গরু শূন্য গেছে।
পশু হাট মালিক আবু কালাম জানান ভ্যাটসহ পশু হাটটি প্রায় ১কোটি ৭৬ লক্ষ টাকায় দরপত্রের মাধ্যমে ক্রয় করা। সেই হিসাবে প্রতি হাটে ১লক্ষ ৮০ হাজার টাকা উঠানোর কথা। কয়েক দিন পরে ঈদুল আজহা।চলমান করোনা পরিস্থিতির কারণে এবার বেশ কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে হাট চালাতে হচ্ছে। ঈদুল আজহার প্রধান উৎসব কোরবানি। তাই গরু হাট জমে উঠার কথা । কিন্তু এবার গরু শূন্য পশুহাট। এর উপর কেশবপুরের সাতবাড়িয়া বাজারে অবৈধভাবে পশু হাট গড়ে উঠেছে। এই হাটটি বন্ধের দাবি জানান তিনি।
সরোজমিনে যেয়ে দেখা যায় প্রায় দুই কোটির টাকার এই হাটটিতে কয়েকটি গরু উঠেছে। নেই লোকসমাগম।

করোনাকালে এ পশুহাট মালিকরা চরম হতাশায় ভূগছেন। এহাটের ইনচার্জ ইকবাল খান তোতা জানান এখন প্রতিদিন দশ বিশ হাজার টাকা আদায় হচ্ছে। পশু হাটের একটি বড় আয় ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আজহার। ঈদুল ফিতরের সময় আম্পান ও করোনার প্রভাবে হাট বন্ধ ছিল। এবার ঈদুল আজহায় একই অবস্থা। মোট
১৮ জন লোক কাজ করে এই হাটিতে। তাদের বেতন এবং হাটের টাকা মিলে কোটি টাকার ক্ষতির আশঙ্কা করছেন।
এমতাবস্থায় চরম আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়াতে অনুপায় হয়ে সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন হাট মালিক।






Related News

Comments are Closed