Main Menu

রূপগঞ্জে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ পিরানহা মাছ


তানজিলা আক্তার , রূপগঞ্জ : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার গাউছিয়া মাছের আড়তে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ পিরানহা মাছ। মঙ্গলবার (২৩জুন) ভোরে সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে উপজেলার গোলাকান্দাইল গাউছিয়া মাছের আড়তে রূপচাঁদা নামে বিক্রি করছে নিষিদ্ধ পিরানহা মাছ। স্থানীয়দের অভিযোগ,মৎস্য অফিসের তদারকি না থাকায় দিন দিন নিষিদ্ধ এ মাছের বিক্রি বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতে সাধারণ জনগণ রূপচাঁদা মাছ মনে করে নিষিদ্ধ ও বিষাক্ত মাছটি অবলীলায় কিনে খাচ্ছেন।এর ফলে তারা অজান্তেই চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে পড়েছেন। জানা যায়, উপজেলার গাউছিয়া মাছের আড়ৎসহ গ্রামঞ্চলের হাট বাজারগুলোতে পিরানহা মাছটি রূপচাঁদা মাছ হিসেবে বিক্রি করছে ব্যবসায়ীরা। অথচ এ মাছটির ক্ষতিকর দিক বিবেচনা করে সরকারিভাবে আইন করে পিরানহা মাছ চাষ,ক্রয়-বিক্রয় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নিষিদ্ধ এ মাছটি যাতে কেউ চাষ বা বিক্রয় করতে না পারে তা তদারকির দায়িত্ব রয়েছে মৎস্য বিভাগের। কিন্তু উপজেলা মৎস্য অফিস এ ব্যাপারে নির্বিকার থাকায় ব্যাপকভাবে বিক্রি হচ্ছে পিরানহা। নাম না বলা শর্তে গাউছিয়া মাছের আড়তের মাছ ব্যবসায়ী খলিল জানান, আমরা জানি মাছটি বিক্রি নিষিদ্ধ। কিন্তু তারপরেও এ মাছটি বিক্রির ব্যাপারে মৎস্য অফিস থেকে কোনও বাঁধা না থাকায় বিক্রি করছি। অপর এক মাছ ব্যবসায়ী শাকওয়াত জানান, সব জায়গায়ই ম্যানেজ করেই পিরানহা মাছ রূপচাঁদা হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। তাছাড়া উপজেলা মৎস্য অফিস থেকে তদারকি না থাকায় মাছ ব্যবসায়ীদের মধ্যে এ নিয়ে কোনও সচেতনতা নেই। মাঠ পর্যায়ে তাদের কোনও কর্মকাÐই আমরা দেখি না। মাঝে মাঝে বিভিন্ন কার্যক্রম হাতে নেওয়া হলেও তা অফিস পর্যায়ে সীমাবদ্ধ থাকে। মাছ চাষী, ব্যবসায়ী বা সাধারণ জনগণ কেউ জানেন না যত রকম প্রচার প্রচারণা ও অনুষ্ঠান হয় তা শুধুমাত্র উপজেলা চত্বরে হয়ে থাকে। তাছাড়া এ মাছগুলো নিষিদ্ধ হলে তা আমদানি হচ্ছে কীভাবে এমন প্রশ্নও করেন তারা। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ ইমরান বলেন, ম্যানেজের বিষয়টি আমার জানা নেই তবে বিষয়টি আমি দেখছি। কোথাও যদি নিষিদ্ধ পিরানহা মাছ বিক্রি করা হয়ে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ বিষয়ে রূপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মমতাজ বেগম জানান, এ ধরনের কোনও নিষিদ্ধ মাছ বিক্রি করা হলে তা প্রতিহত করা হবে।






Related News

Comments are Closed