Main Menu

কেশবপুরে সড়কের পাশের মরা গাছটি যেন মরণ ফাঁদ

অলিয়ার রহমান, কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধিঃ কেশবপুর শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যশোর-সাতক্ষীরা সড়কের পাশে মরা শিশু গাছটি এখন এলাকাবাসীর নিকট ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। দীর্ঘ চার বছর ধরে গাছটি মরে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। সামান্য বাতাস হলেই এর ডালপালা ভেঙ্গে পড়ছে। বাতাসে ডাল ভেঙ্গে পড়ে পাশের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি হচ্ছে। গাছটির নিচে দুটি পরিবার ঝুঁকির ভিতর বসবাস করছে। গাছটির পাশ দিয়ে বয়ে গেছে ফুটপাত। এ পথ ধরে মানুষের চলাচল করতে হয়। গাছের একটি ডাল ভেঙ্গে আরেকটি ডালের সঙ্গে ঝুলে রয়েছে। যেকোন সময় ওই ডাল পড়ে মারাত্মক দুর্ঘটনার আশংকা করছে এলাকার মানুষ। সড়কের পাশের মরা গাছটি এখন যেন মরণ ফাঁদ?
গাছটির নিচে বসবাসকারী সুলতান গাজী বলেন, ঝুঁকির ভিতর ওই মরা গাছের নিচে বসবাস করতে হয়। পাশে অবস্থিত পপি ফার্নিচারের মালিক বরুন সাহা বলেন, সামান্য বাতাস হলেই ডালপালা ভেঙ্গে পড়ে। ওই গাছের ডাল ভেঙ্গে আমার দোকানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।পথচারী আবুল কাশেম ও সাধন বলেন, ঝুঁকি নিয়ে মরা গাছের পাশ দিয়ে যাতায়াত করতে ভয় লাগে। দীর্ঘদিন গাছটি মরে ঝুঁকিপূর্ণ হলেও অপসারণ করা হচ্ছে না। 
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক পথচারী জানান, স্থানীয় বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিদের নিকট ওই ঝুঁকিপূর্ণ গাছ সম্পর্কে জানালেও তারা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে এর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। দ্রুত গাছটি অপসারণ না করলে যেকোন সময় মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে বলে এলাকাবাসী আশংকা করছে।
উপজেলা বনবিভাগ কর্মকর্তা আব্দুল মোনায়েম বলেন, মরা গাছটি বন বিভাগের নয়। যেকারণে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাচ্ছে না।
এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের সার্ভেয়ার এম এ মঞ্জুর বলেন, গাছটি মরে যাওয়ার খবর পেয়েছি। দ্রুত ওই মরা গাছটি অপসারণের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।






Related News

Comments are Closed