Main Menu

মতলব দক্ষিণ উপজেলা সহকারি প্রকৌশলী আহমেদের অশোভন কথাবার্তা

আব্দুল মান্নান খানঃ ১৪মে দু পুরে মতলব দক্ষিণ উপজেলার সহকারি প্রকৌশলী আহমেদকে অফিসে না পেয়ে তার মুঠোফোনে ফোন করে একটি ঘাট তৈরিতে অনিয়মের বিষয় নিয়ে সংবাদে ওনার বক্তব্য চাইতেই তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, আপনি এভাবে কথা বলেন কেন? কিসের সংবাদ? আমি কিছু জানি না উপজেলা ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বলেন, মেম্বারের সাথে কথা বলেন। আমিও এ দেশের নাগরিক আপনিও এ দেশের নাগরিক, আমি গভমেন্ট চাকরি করি, কাজের বিল কি দিয়ে দিয়েছি নাকি, আমরা শতভাগ কাজ উঠাতে চাই কিন্তু পারিনা। এভাবে তিনি আরো আনেক নেতিবাচক কথা বলতে থাকে।
জানাযায়, মতলব দক্ষিণ উপজেলার ডিংগাভাঙ্গা বাংলাবাজার সংলগ্ন রবিউল আউয়ালের বাড়ির পুকুরে একটি সরকারি ঘাটের কাজ পায় স্থাণীয় ইউপি সদস্য মাঈন উদ্দিন। গত ৭মে রাতে ঘাটের ঢালাই কাজ সম্পন্ন করেন তিনি এবং ঢালাই কাজ তদারকির জন্য উপস্থিত ছিলেন মতলব দক্ষিণ উপজেলা সহকারি প্রকৌশলী আহমেদ। কিন্তু গত কয়েকদিন যাবৎ ঘাট তৈরিতে ব্যাবহার করা রডসহ যাবতীয় উপকরনে মান নিয়ে নানারকম কথাবার্তা শুনা যায় ঐ এলাকায় । পরে এলাকার লোকদের সাথে আলাপ করে উপজেলায় এসে প্রকৌশলী মোঃ জাকির হোসেনের কাছে ঘাটের বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে চাইলে তিনি বলেন, এমন কোন ঘাটের বিষয়ে আমার জানা নাই। আপনি সহকারি প্রকৌশলীর সাথে কথা বলে দেখেন। সহকারি প্রকৌশলী আহমেদকে অফিসে না পেয়ে তার মুঠোফোনে ফোন করে এ বিষয়টি সংবাদে ওনার বক্তব্য চাওয়া চাইতেই তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, আপনি এভাবে কথা বলেন কেন? কিসের সংবাদ? আমি কিছু জানি না ইঞ্জিনিয়ারের সাথে কথা বলেন, কাজ করেছে মেম্বার মেম্বারের সাথে কথা বলেন। আমিও এ দেশের নাগরিক আপনিও এ দেশের নাগরিক, আমি আমি গভমেন্ট চাকরি করি, কাজের বিল কি দিয়ে দিয়েছি নাকি, আমরা শতভাগ কাজ উঠাতে চাই কিন্তু পারিনা। এভাবে তিনি আরো আনেক নেতিবাচক কথা বলতে থাকে।
মাঈন উদ্দিন মেম্বার বলেন, কাজ সঠিকভাবে হয়েছে কাজে কোন অনিয়ম হয়নি, ঢালাইয়ের সময় উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার উপস্থিত ছিলেন আপনি তাদের সাথে কথা বলেন।
ঐ বাড়ির রবিউল আউয়াল বলেন, ঘাট কেউ করে দেয় নাই আমরা আমাদের টাকা দিয়ে করেছি।






Related News

Comments are Closed