Main Menu

দক্ষিনখানে মানছেনা লকডাউন, যুবলীগ নেতার কাজে গিয়ে আহত শ্রমিক।

রাজধানীর দক্ষিণখান থানাধীন মাল্টি গার্মেন্টস সংলগ্ন একটি বাড়ির দুই তলার ছাদ ঢালাই এর প্রস্তুতিকালে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আব্দুর রশিদ (৩১)নামের একজন শ্রমিক গুরুতর আহত হয়েছেন। আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। জানা যায়, করোনার মহামারীতে সারাদেশ যখন লকডাউন এ তখন দক্ষিনখান ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি মিলন হোসেন (সৈকত) এর মদদে ঐ বাড়িতে কাজে আসেন শ্রমিকরা । মঙ্গলবার দুপুর ১২ টার দিকে বাড়িটির দ্বিতীয় তলার ছাদে ক্রেইন(ঢালাই উপরে তোলার মেশি) স্থাপন কালে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয়রা জানান বিকট শব্দে দুই তলার নির্মাণাধীন ছাদ থেকে মানুষ পড়ে যেতে দেখে এগিয়ে আসি, পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। আহত আব্দুর রশিদ এর গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জ জেলার, মাধবপুর থানার, গোবিনাথপুর গ্রামে।তার পিতার নামঃ আব্দুল আউয়াল। পরিবারে স্ত্রী ও দুই সন্তান রয়েছে তার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন শ্রমিক বলেন, করোনার ভয়ে কোথাও কাজে যাইনা, তারমধ্যে পুলিশ ও স্থানীয়রা কাজে গেলে বাধা দেয়। কিন্তু এখানে নেতা মিলন বলছে পুলিশি ও স্থানীয় ঝামেলা সে দেখে নেবে, তাই পেটের দায়ে কাজে আসছি। আগামীকাল ছাদ ঢালাই হবে,আর তাই আজ আমরা ক্রেইন বসাতে এখানে আসছি। এসেই দুর্ঘটনার কবলে পড়ল আমাদের আরেক শ্রমিক আঃরশিদ। তবে কারেন্টের তার যদি প্লাস্টিক জাতীয় কিছু দিয়ে ঢেকে দিত তাহলে আর এই দুর্ঘটনা ঘটতোনা। আহত আব্দুর রশিদ এর স্ত্রী মারুফা বেগম মুঠোফোনের মাধ্যমে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আমাদের অভাবের সংসার। তারমধ্যে লকডাউনের জন্য হবিগঞ্জ থেকে ঢাকায় স্বামীকে দেখতে যেতে পারছি না। স্বামীর চিকিৎসা কিভাবে হয় তাও জানিনা। দয়া করে আপনার আমার স্বামীকে বাঁচান। এই বিষয়ে দক্ষিনখান ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি মিলন হোসেন (সৈকত) এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, শ্রমিকরা কাকে বলে কাজে আসছে? আমি বলেছি ২৪ তারিখের পরে কাজে আসতে। আর ওই বাড়িটিও আমার না আমি শুধু সেখানে ইট, বালি সাপ্লাই দিয়েছি।






Related News

Comments are Closed