Main Menu

মতলব উত্তরে কাজী মিজানের,পর্যটন কেন্দ্রর নামে জমি দখলের পায়তারা, ফুঁসে উঠেছে এলাকাবাসী

স্টাফ রিপোর্টার :মতলব উত্তর থানাধীন মোহনপুর এলাকায় মোহনপুর পর্যটন কন্দ্র স্থাপনের নামে জমি দখল করে প্লট নির্মাণের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে একটি কুচক্রি মহল। স্থানীয় দলছুট আ’লীগ নেতা কাজী মিজানের নেতৃত্বাধীন বাহিনী। তারা নিজেদের পেকেট ভারি করার লক্ষ্যে সরকারী- বেসরকারী জায়গা জোড়পূর্বক দখল করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মেঘনা- ধনাগোদা বেড়িবাঁধের ঘা ঘেষে নির্মান করতে চাচ্ছে মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্র। এমনিতেই এ স্থানটি খুবই ঝুঁকিপূর্ন। প্রতিবছর এ স্থান দিয়েই বেড়িবাঁধ অরক্ষিত হয়ে পরে। যদি এ স্থানে পর্যটন কেন্দ্রে স্থাপনের জন্য বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন অনুমোদন দেন কিংবা স্থানীয় সাংসদ যদি ডিও লেটার দেন তাহলে বেড়িবাঁধ বেস্টিত ৬২ কিলোমিটারের লোকজন বর্ষা মৌসুমে নিরাপত্তাহীনতায় থাকবে। ব্যক্তি স্বার্থের  জন্য সরকার যদি এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে স্থানীয়রা বৃহৎ আন্দোলন করার হুমকি দেন। এমনিতেই মতলব উত্তরের সাধারণ মানুষ কাজী মিজানের পরিবার দ্বারা বিভিন্নভাবে মামলা হামলার শিকার হচ্ছে। আবার যদি পর্যটন কেন্দ্র নিজেদের দখলে নিয়ে যায়, তাহলে চরঞ্চালের মানুষ ও বেড়িবাঁধ বেস্টিত এলাকার মানুষ হুমকিতে থাকবে। প্রসঙ্গত মোহনপুর ইউনিয়নের পার্শ্ববর্তী  ইউনিয়ন ষাটনলে রয়েছে সরকারের ষাটনল পর্যটন কেন্দ্র। রয়েছে সরকারী রেষ্ট হাউস, কেয়ারটেকার সর্বোপুরি সরকারী অধিগ্রহনকৃত জমি।  ৫কিলোমিটার দূরে আরও একটি পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন করা সরকারের টাকা অপচয় মাত্র। এলাকাবাসীরা জানান, কার উন্নয়নের স্বার্থে  পানি উন্নয়ন বোর্ডের জমি জোড়পূর্বক নেওয়া হবে ? পর্যটন কেন্দ্র হলে ও ওই এলাকায় মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি তো দূরের কথা  কাজী মিজানের ভাই মতিন ও হাবিবের কর্মসংস্থান হবে। এলাকাবাসী আরো জানান, কাজী মিজান একজন অবৈধ বালু ব্যবসায়ী। সে মেঘনা নদী থেকে অবৈধ বালু  উত্তোলন করে ঢাকা’সহ দেশের বিভিন্নস্থানে বিক্রি করে রাতারাতি হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। নামে বেনামে গড়ে তুলেছেন একাধীক প্রতিষ্ঠান। যদিও তারা দলছুট নেতা হিসেবে বৃহত্তর মতলবে পরিচিত। তার জন্য আওয়ামী রাজনীতির ত্যাগীরা অনেকেই দূরে চলে গেছে। যদি এখানে মোহনপুর পর্যটন কেন্দ্র স্থাপন হয় তাহলে প্রধানমন্ত্রী বরাবর অভিযোগ পাশাপাশি জেলা প্রশাসক, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ নিকট প্রতিকার চেয়ে আবেদন করবো।






Related News

Comments are Closed