Main Menu

প্রতিপক্ষের হামলায় আইনজীবী আহত।।থানায় মামলা নিতে গড়িমসি

ষ্টাফ রিপোর্টারঃচাঁদপুরের মতলব উত্তরে প্রতিপক্ষের হামলায় ঢাকা বারের আইনজীবী এডভোকেট ওসমান গনি, তার ভাবি নিলুফা আক্তার, ভাই কাউছার ও ভগ্নিপতি হাবিব মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন। গুরুত্বর আহত অবস্থায় তাদেরকে মতলব উত্তর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও মতলব দক্ষিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদের অবস্থা আশংকা জনক অবস্থায়  উন্নত চিকিৎসার জন্য কাউছার ও হাবীবকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং এডভোকেট ওসমান গনি ও নিলুফা আক্তারকে চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে রেফার করেন।পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ফতেপুর পূর্ব ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আবুল হাছানাত বেপারীর সাথে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আজমল হোসেন চৌধুরীর পূর্ব শত্রুতার কারনে ইউপি চেয়ারম্যান তার দলবল নিয়া আবুল হাছানাত বেপারীকে বিগত ১৮/০১/২০ তারিখে হত্যাচেষ্টা করিলে তার স্ত্রী নিলুফা বেগম বাদী হয়ে চাঁদপুর আদালতে সি.আর- ১৪/২০ মামলা দায়ের করে। চেয়ারম্যানের গ্রুপ উক্ত মামলায় জামিনে গিয়া ওই রেশ ধরে শুক্রবার (৬ মার্চ) সকালে চেয়ারম্যান আজমল চৌধুরীর নির্দেশে ও উপস্থিতিতে তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী  মিজান মৃধা, আলম, আর্শাদ প্রধান, মফিজল, রাসেল সরকার, মুক্তার হোসেন, আরিফ, খবির, আশিক, মতিন ও কাশেম প্রধান সহ আরো ২০/৩০জন আবুল হাছানাতকে হত্যার উদ্দেশ্য তুলে আনতে গেলে তাকে না পেয়ে আবুল হাসানাতের ৭ম শ্রণীতে পড়ুয়া কিশোরপুত্র তামিমকে তুলে নিয়ে অপহরন করার চেষ্টা চালায়। আবুল হাসানাত বাড়ীতে না থাকায় হাসানাতের ভাই এডভোকেট ওসমান গনি সহ অন্যান্য লোকজন তাদেরকে বাধা দেয়। হাছানাত এর স্ত্রী নিলুফা বেগমের ডাক চিৎকারে গ্রামবাসী ছুটে এসে তাদেরকে প্রাণ বাঁচায় এবং আশংকাজনক অস্থায় হাসপাতালে প্রেরণ করে। হাসানাতের স্ত্রী নিলুফা জানান যে তিনি হাসপাতাল থেকে মতলব উত্তর থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ দিলেও প্রতিপক্ষের অবৈধ প্রভাবের কারনে থানা কতৃপক্ষ এখনো কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগের চেষ্টায় তার মোবাইলে ফোন করলে মোবাইলটি বন্ধ পাওয়ায় তার কোন প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।






Related News

Comments are Closed