Main Menu

সিদ্ধিরগঞ্জে মাদক ব্যবসায়ীদের হাতে শুভ খুন, গ্রেফতার-৩

সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীকে পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছে এমন সন্দেহে শুভ নামে এক মটর শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা করে মাদক ব্যবসায়ীরা। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় থানার শিমরাইল টাইগার ফ্যাক্টরির সামনে রাস্তার উপর এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ হত্যার সাথে জড়িত সন্ধেহে ৩’জনকে গ্রেফতার করে। শুভর মা শাহানাজ বেগম বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। খবর পেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।
এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, গত কয়েক দিন আগে শিমরাইল উত্তরপাড়া এলাকার আব্দুল আজিজের ছেলে আনিসকে মাদকসহ পুলিশ গ্রেপ্তার করে। পরে আনিস জামিনে বের হয়ে আসে আনিস। ফারুক আনিসকে পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছে এমন সন্ধেহে আনিস ও তার বোন জামাতা জনিসহ কয়েকজন শুভর বন্ধু ফারুককে মারধর করে। পরে ফারুক তার বন্ধুদের নিয়ে জিজ্ঞাসা করতে জনিদের বাড়িতে যায়। ওখানে তাদের মধ্যে প্রচÐ বাকবিতন্ডা হয়। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় গ্যারেজ থেকে কাজ শেষ করে শিমরাইল টাইগার ফ্যাক্টরির সামনের রাস্তার দিয়ে বাসায় যাচ্ছিলেন শুভ। পথিমধ্যে রাস্তায় দেখা হয় ইয়াবা ব্যবসায়ী জনি ও আনিসসহ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী তার বন্ধু ফারুককে মারধর করে। এসময় শুভ এগিয়ে গেলে তারা শুভকে রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর রক্তাক্ত জখম করে। তাদের ডাক চিৎকারে এলাকার কয়েকজন যুবক শুভ ও ফারুককে উদ্ধার করতে গেলে মাদক ব্যবসায়ী জনি, আনিস, সজিব, শাকিল, হৃদয় (২), অনিক, হাসু, নজরুল, বিথি, শাহানাজ, শিউলী ও নাজমাসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪’জন তাদের উপর হামলা চালায়। মাদক ব্যবসায়ীদের হামলায় শুভ, ফারুক, জুম্মন, রফিক, মোজাম্মেল ও হৃদয় (১) আহত হয়। এদের মধ্যে শুভ ও জুম্মনকে উদ্ধার করে স্থানীয় সাজেদা হাসপাতালে নিলে ডাক্তার তাদের ২’জনের অবস্থা আশংকাজনক দেখে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে। হাসপাতালে গেলে ডাক্তার শুভকে মৃত ঘোষনা করে। জুম্মন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছে। খবর পেয়ে রাতেই সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (অপারেশন) রুবেল হাওলাদার, উপ-পরিদর্শক হাফিজুর রহমান, মুজিবুর রহমান, গৌতম তেওয়ারী, সহকারি উপ- পরিদর্শক মোমেন আলম ও হুমায়ুন কবির ঘটনাস্থল গিয়ে মারিয়া, আতিক ও অনিককে গ্রেফতার করে। নিহত শুভ শিমরাইল উত্তরপাড়া এলাকার জাহাঙ্গীরের বাড়ীর ভাড়াটিয়া মৃত আব্দুর রবের ছেলে। সে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কাঁচপুর সেতুর পশ্চিমপাশে সাজেদা হাসপাতাল সংলগ্ন একটি ট্রাকের গ্যারেজে মেকানিকের কাজ করতো। নিহত শুভর বাড়ীর মালিক জাহাঙ্গির ও তার স্ত্রী সুমি এ হত্যার ঘটনাকে ধামাচাপা ও আপোষ মিমাংসা করার চেষ্টা করছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ জাহাঙ্গীরের বাড়িতে নিয়মিত মাদক সেবন ও গানবাজনার আসরের অন্তরালে মাদক বিক্রি হয়। পুলিশ একাধিকবার জাহাঙ্গীরের বাড়িতে অভিযান চালালেও তাদের অপরাধের কার্যক্রম বন্ধ হয়নি। এ ব্যাপারে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (অপারেশন) রুবেল হাওলাদার বলেন, আমরা অনিক নামে একজনকে গ্রেফতার করেছি। আরো ২’জনকে জিজ্ঞাসা করার জন্য থানায় নিয়ে আসি। অপরদিকে এ ঘটনায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যাওয়া সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আজিজুল হক জানান, নিহতের মাথার পিছনে রড দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরনে শুভর মৃত্যু হয়েছে। নিহত শুভর মা শাহনাজ বেগম জানান, ‘শুভ ও ফারুক দুইজন বন্ধু ছিল। কিছুদিন আগে ফারুক আনিস নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে পুলিশে ধরিয়ে দেয়। এর ক্ষোভে শুক্রবার রাতে ফারুককে আনিস ও তার সহযোগিরা মারধর করতে থাকলে ফারুককে বাঁচাতে এগিয়ে যায় শুভ। ওইসময় শুভকেও রড দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। শাহনাজ বেগম বলেন, ‘আমার ছেলে আমার একমাত্র সম্পদ। শুভ কাজ করে সংসার চালায়। খারাপ কারো সঙ্গে চলে না। আমি আমার ছেলে হত্যার বিচার চাই।######






Related News

Comments are Closed