Main Menu

মতলবে পল্লীমা প্রি-ক্যাডেট স্কুল নিয়ে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ

মতলব প্রতিনিধিঃ মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়েরগাঁও দক্ষিণ ইউনিয়নের পল্লীমা প্রি-ক্যাডেট স্কুল নামে একটি কিন্ডার গার্ডেন নিয়ে বাসুদেব মল্লিক নামে এক ব্যাক্তি ষড়যন্ত্র করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রতিষ্ঠানটি শুরুর সময় থেকে চলতি বছর ডিসেম্বর পর্যন্ত ভাড়ার টাকা আগাম দেয়া থাকলেও ঐ ব্যাক্তি তা সরিয়ে দেয়ার জন্য নানা কৈশল করেছে বলে জানিয়েছে ঐ প্রতিষ্ঠানের মালিক প্রানতুষ দাস।
সরে জমিনে জানা যায়,নায়েরগাঁও আই, সি,ডি,ডি, আরবি সংলগ্ন কতে যায়গায় অজিত মল্লিক এর মাতা কল্যানী মল্লিক হইতে লিখিত ভাবে ভাড়া নিয়ে অনুমান নয় বছরের অধিক এলাকার কোমলমতি শিশুদের নিয়ে প্রানতুষ দাস পল্লীমা প্রি-ক্যাডেট স্কুল সুনামের সহিত পরিচালনা করে আসছে। বাসুদের মল্লিকের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্থানটি নিয়ে লোভ লালসা বেড়ে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি উচ্ছেদ করার জন্য বিভিন্ন পন্থায় ষড়যন্ত্র করতে থাকে এমন কি বিধবা মাতাকে ঘর ভাড়া থেকে বঞ্চিত করার জন্য উঠেপরে লাগে। জমির ভাগবাটয়ারা নিয়ে দ¦ন্ধ শুরু হলে ছোট ভাই অজিত মল্লিক স্ত্রী বীথি রানী মল্লিকের নামে দান পত্র করে দেন। এ নিয়ে বড় ভাই বাসুদেব মল্লিক অজিত মল্লিক ও স্ত্রী বীথি রানী মল্লিকের নামে আদালতে মামলা করে। প্রশাসনের নির্দেশে এ, এস, আই, মোঃ জহির ও জনৈক কনসটেবল সহ বিরোধকৃত স্থান শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গতবছরের ৩১ ডিসেম্বর তদন্তে আসেন। তিনি এলাকার গন্য মান্য ব্যক্তি দুই ভাই ও তাদের বিধবা মায়ের বক্তব্য শুনে শান্তি শৃংখলার লক্ষ্যে আদালতের রায় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা যাবে না তিনি আরও বলেন জায়গার মালিক নির্ধারন হওয়ার পর প্রকৃত মালিককে ভাড়া দিলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকবে, না হলে অন্যত্র চলে যাবে। এ সময় স্থানীয় ইউপি সদস্য বিনয় ভূষন দাশ, একে, এম,জামাল উদ্দিন, সুখ রঞ্জন পাল, গবিন্দ ঘোষ। দিপংকরসহশিক্ষক ছাত্র/ছাত্রী অভিভাবক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
ছোট ভাই অজিত মল্লিক বলেন,প্রতিষ্ঠানের যায়গাটি আমার স্ত্রীর তবে মা জীবিত থাকা কালীন সময়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জায়গার ভাড়া মা নিবে এবং পরবর্তীতে আমার স্ত্রী। এ বিষয়ে বাসুদেব মল্লিক বলেন, আমি আর প্রানতোষ এক হয়ে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি শুরু করেছিলাম। প্রানতোষ অন্যত্র প্রতিষ্ঠানটি সরিয়ে নিয়ে যাবে বলে ঘরও তৈরি করে কিšু‘ এখন সে আমার ছোট ভাইয়ের মরামর্শ শুনে যায়গা খালি করছে না।






Related News

Comments are Closed