Main Menu

কেশবপুরে কৃষকের কাছে পুলিশের নাম ভাঙ্গিয়ে চাঁদা দাবিতে আওয়ামীলীগ নেতাসহ গ্রেফতার ৩

শামীম আখতার, ব্যুরো প্রধান (খুলনা): কেশবপুরে থানায় নাশকতা মামলা আছে এমন ভয় দেখিয়ে পুলিশের নামে চাঁদা দাবি এবং জোর পূর্বক আদায়ের অভিযোগে আওয়ামীলীগ নেতাসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় কৃষক আব্দুল গফ্ফার সানা বাদি হয়ে মজিদপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম, আছলাম সানা ও লালু মহলদারের নাম উল্লেখ করে কেশবপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার (২ ডিসেম্বর) আসামী শহিদুল ইসলাম তাঁর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত আব্দুল গনি সানার ছেলে কৃষক আব্দুল গফ্ফার সানার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে তার নামে থানায় নাশকতার মামলা আছে বলে জানিয়ে উক্ত মামলা থেকে বাঁচাতে কেশবপুর থানার ওসির নাম ভাঙ্গিয়ে ১৫ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। সে তার নামে মামলা নেই জানালেও ওই দিন সন্ধ্যায় আব্দুল গফ্ফার সানা পায়ে হেটে বাড়ি ফেরার পতিমধ্যে শ্রীরামপুর বাজারস্থ মাদ্রাসার পিছনে ফাঁকা জায়গায় পৌছালে আসামীরা তার নিকট থেকে চাঁদা হিসাবে জোর পূর্বক সাড়ে ৯ হাজার টাকা আদায় করে এবং বাকী সাড়ে ৫ হাজার টাকা পরের দিন দিতে হবে বলে হুমকী দেয়। এ ঘটনায় ৭ ডিসেম্বর আব্দুল গফ্ফার সানা বাদি হয়ে তিন জনের বিরুদ্ধে কেশবপুর থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় শনিবার রাতে তাদেরকে কেশবপুর থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে।
এ ব্যাপারে কেশবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবু সাঈদ বলেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে এলাকায় পুলিশের নামে চাঁদা আদায়সহ ভয়ভীতি, হুমকি ও নাশকতা মামলায় ঢোকানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাঁদাবাজি ঘটনা উল্লেখ করে আব্দুল গফ্ফার সানা বাদি হয়ে তিন জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করায় তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। রবিবার তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।






Related News

Comments are Closed