Main Menu

কেশবপুরে ডেঙ্গু রোগী বেড়েই চলেছে ॥ দেড় মাসে আক্রান্ত ১৭৭ জন

শামীম আখতার, ব্যুরো প্রধান (খুলনা): যশোরের কেশবপুরে দিন দিন ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে ৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি ও বুধবার আরও ১৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে গত ২৬ জুলাই থেকে ১০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১৭৭ জন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন। ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে বর্তমানে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩০ জন ভর্তি রয়েছেন।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, গ্রামের থেকে তুলনামূলক শহরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেশী। গত দেড় মাসে কেশবপুর পৌরসভা ও সদর ইউনিয়নে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ৭৫ জন। সে তুলনায় উপজেলার অন্য ১০টি ইউনিয়নে (গ্রামাঞ্চলে) ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ৮৪ জন। এ ছাড়াও পার্শ্ববর্তী উপজেলা মণিরামপুরের ১৫ জন, বাঘারপাড়া উপজেলা ১ জন, ডুমুরিয়া উপজেলার ১ জন এবং সাতক্ষীরা জেলার ১ জনসহ মোট ১৭৭ জন কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ডেঙ্গু রোগে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন। বর্তমানে এদের মধ্যে ৩০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এপর্যন্ত ১৪৭ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসা সেবা নিয়ে ইতোমধ্যে হাসপাতাল ছেড়েছেন। আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে ০৬ জন শিশু, ১১৮ জন পুরুষ ও ৫৩ জন নারী। উল্লেখ্য, মজিদপুর ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামেই ১৮ জন ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন। এ ছাড়াও ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেক রোগী উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর ও বিভাগীয় শহরের বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছেন বলে এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়।
কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার-পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মো. হারুন-অর-রশীদ বলেন, ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত রোগীদের সকল ধরণের সেবা ও ঔষধ হাসপাতাল থেকে দেওয়া হচ্ছে। ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার ব্যাপারে কোন ক্রটি নেই। প্রতিদিনই জ্বরে আক্রান্ত হয়ে অর্ধশতাধিক রোগী ডেঙ্গু পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে আসেন। তবে জনগণ সতেচন না হলে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা কম হবেনা।






Related News

Comments are Closed