Main Menu

মতলবে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্যা করে কাঞ্চনমালা দিঘীতে মাছ চাষের হুমকি


মতলব প্রতিনিধি: মতলব দক্ষিণ উপজেলার কাচিয়ারা গ্রামের কাঞ্চনমালা দিঘীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে জোর পূর্ব মাছ চাষের হুমকি প্রদানের অভিযোগ উঠেছে। এতে বর্তমানে ওই দিঘীর মাছ চাষীরা আতঙ্গে রয়েছেন বলে অভিযোগ করেন।
জানা যায়, উপজেলার নায়েরগাঁও উত্তর ইউনিয়নের কাচিয়ারা গ্রামের ঐতিহবাহী দিঘী হলো এই কাঞ্চনমালা। দিঘীর ১৪ একর ৩৯ শতাংশ সম্পত্তির মালিকানা দাবী করে ২০০৫ সালে চাঁদপুরের বিজ্ঞ আদালতে মামলা করেন আবেদা খাতুন গং। ওনার পক্ষে সেই মামলা পরিচালনা করছিলেন তাদের ওয়ারিশ আহম্মদ আলী। মামলা চলাকালে বিজ্ঞ আদালত সার্বিক বিবেচনা করে ২০১০ সালে বাদীর পক্ষে একটি অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। নিষেধাজ্ঞায় উল্লেখ্য থাকে যে, মামলা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বাদীপক্ষ ও তাদের অংশীদারগণ ওই দিঘীতে মাছ চাষ করে তার সুফল ভোগ করবে। নিষেধাজ্ঞা জারির পর আহম্মদ আলীর মৃত্যু হলে এই মামলা পরিচালনা করছেন মান্নান সরকার গং। এদিকে আদালতের সেই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার চেয়ে চলতি বছরের ১৮ আগষ্ট প্রতিপক্ষের লোকজন নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের আবেদন করলে আদালত নামঞ্জুর করেন।
বাদী মান্নান সরকার বলেন, বর্তমানে ওই দিঘীতে আমাদের চাষকৃত প্রায় ২০ লক্ষ টাকার অধিক মূল্যের মাছ রয়েছে। কিন্তু আদালতের নির্দেশ অমান্য করে কাচিয়ারা স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি শাহজাহান সরকার, রেজ্জাক মাষ্টার ও হুমায়ূন কবির সরকার দিঘীতে মাছ চাষ করতে চায়। এজন্য তারা এলাকার কিছু লোককে হাত করে আমাদের চাষকৃত মাছের মধ্যে তারাও মাছ চাষ করবে বলে হুমকি দিয়ে আসছে।
মামলার বাদী পক্ষের বাচ্চু মিয়া বলেন, এরপূর্বে বিবাদীগণ চাঁদাবাজি, মাছ চুরি, সন্ত্রাসী হিসেবে আখ্যা দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মামলা দেয়। আল্লাহর রহমতে আমি তাদের দেওয়া মিথ্যা মামলা থেকে রেহাই পাই। কিন্তু বর্তমানে তারা আরো মামলা দেওয়ার হুমকি দিয়ে আসছে।
এই নিয়ে কাচিয়ারা স্কুল এন্ড কলেজের সভাপতি শাহজাহান সরকার বলেন, কলেজের সার্বিক উন্নয়ন ও শিক্ষকদের বেতনের জন্য দিঘীটি ইজারা দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকায় দিতে পারছি না।






Related News

Comments are Closed