Main Menu

কোটালীপাড়ায় অবৈধভাবে বালু ভরাট করে সরকারি খাল দখল ॥

হেমন্ত বিশ্বাস, গোপালগঞ্জ : নেই কোন অনুমতি, নেই কোন তোয়াক্কা। গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় সুষেণ পান্ডে নামে এক ব্যক্তি রাধাগঞ্জ-গান্ধিয়াশুর সড়কের কলাবাড়ী ইউনিয়নের চক-পুকুরিয়া পয়েন্টে একটি কালভার্ট-ব্রীজের নি¤œাংশসহ জনগুরুত্বপূর্ণ সরকারি খালের অর্ধেকটা জুড়ে অবৈধভাবে বালু ভরাট করে দখল করে নিয়েছেন। কিন্তু কিছুই জানেন না সংশ্লিষ্ট কেউই। স্থানীয় সাধারণ লোকজনও কেউ বাঁধা দিতে সাহস পায়নি। তারপরও সাংবাদিক কাছে পেয়ে নাম না প্রকাশের শর্তে অভিযোগ তুলেছেন অনেকেই।
তারা অভিযোগ করে বলেছেন, সুষেণ পান্ডে দু’ বছর আগে স্থানীয় দুলাল রায়ের কাছ থেকে ১৭ শতাংশ জমি কেনেন। এ বছর তিনি ওই জমিসহ ব্রীজ ও খালের অর্ধেকটা জায়গা জুড়ে অবৈধভাবে বালু-ভরাট করে দখল করে নিয়েছেন। এতে ওই খালের প্রবাহ কমে গেছে এবং এলাকার সাধারণ নৌ-চলাচলও চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। খালটি বন্ধ হয়ে গেলে বিপদগ্রস্থ হয়ে পড়বে তরমুজ-খ্যাত কালীগঞ্জ সহ আশপাশ এলাকার সমগ্র কৃষককূল। তারা আরও জানান, প্রতিবছর বর্ষার সময় রাস্তার ওই স্থানে ভেঙ্গে যায়। এ কারণে এলজিইডি পর পর তিনটি কালভার্ট ব্রীজ নির্মাণ করে দেয়। পরে ভাংগন বন্ধ হয়। সেই তিনটি ব্রীজেরই একটির নি¤œাংশসহ খাল দখল করে নিয়েছে সুষেণ পান্ডে। এজন্য তারা দ্রুত ব্রীজের তলদেশসহ খালটিকে মুক্ত করারও দাবী জানান।
এব্যাপারে অবৈধ দখলদার সুষেণ পান্ডের (৪৫) সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, আমার বাড়ি যাওয়ার রাস্তা নাই। তাই বালু ভরাট করে বাড়ি যাওয়ার রাস্তা বানাচ্ছি। এতে অনুমোদনের কী আছে, আর কাউকে বলারই বা কী আছে? এখানে কোনও কালভার্ট-ব্রীজ লাগে না। সরকার যদি বলে তো আমি আমার বালু সরিয়ে নেব।
কলাবাড়ী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাইকেল ওঝা জনকণ্ঠকে বলেছেন, তিনি এব্যাপারে কিছুই জানেন না। তবে, বিষয়টি তিনি অবশ্যই ইউএনও সাহেবকে জানাবেন বলে মন্তব্য করেন।
রবিবার দুপুরে কোটালীপাড়ার ইউএনও এস এস মাহফুজুর রহমান মোবাইল ফোনে বলেন, বিষয়টি তাকে কেউ অবহিত করেনি। এখন তিনি জানলেন; অবশ্যই তিনি এর ব্যবস্থা নিবেন।






Related News

Comments are Closed