Main Menu

কমিউনিটি পুলিশং গঠনে মানা হচ্ছেনা ওসি’র নির্দেশ

নাসিক ৫নং ওয়ার্ডে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠনে মানা হচ্ছেনা ওসি’র নির্দেশ। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি(সার্বিক) মীর শাহিন শাহ্ পারভেজ স্পষ্ট বলেছেন কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠনের সময় যাতে কোন বিতর্কিত লোক কিংবা মাদকাসক্ত কমিটিতে স্থান না পায় সেদিকে খেয়াল রেখে কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন। যদি কোন বিতর্কিত লোক দিয়ে কমিটি হয় তাহলে কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন বলে স্পষ্ট জানানোর পরও কোন কোন ওয়ার্ডে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি গঠনে তা মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। কমিটি গঠনের মাদকাক্তদের স্থান পাওয়ার পাশাপাশি বিএনপি জামাতের লোকদেরও স্থান দেয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকা জুড়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃস্টি হয়েছে। গত শনিবার নাসিক ৫নং ওয়ার্ডে কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি অনুমোদন প্রদান করা হয়। কমিটি এলাকায় প্রচার হবার সাথে সাথে শুরু হয়েছে ব্যাপাক সমালোচনা। কমিটিতে এমন লোকদের স্থান দেয়া হয়েছে যাদের বিরুদ্ধে মাদক সেবনের অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়া কমিটিকে যারা এক সময় বিএনপি করতো তাদেরকে সদস্য করা হয়েছে। একই পরিবারের ৮’জনকে কমিটিতে অন্তভূক্ত করে হৈচৈ ফেলে দেয়া হয়েছে। যারা আন্তজিলা ট্রাক চালক ইউনিয়ন কমিটিতে সামান্য সদস্য পদ লাভ করতে পারেনি তাদেরকে সাংগঠনিকের মতো গুরুত্বপূর্ন পদে নির্বাচিত করা হয়েছে। কমিটিতে থেকে আ’লীগের অনেকে ত্যাগী নেতাদের বাদ দেয়া হয়েছে। যারা পূর্বের কমিটিতে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন পদে ছিলো তাদেরকে এবারের কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। এই ধরনের অভিযোগের পর গতকাল কয়েকজন এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, কমিটিতে হাফেজ গিয়াস উদ্দিনকে সদস্য করা হয়েছে যে নাকি বিএনপি’র ওলামা দলের সাথে জড়িত। আলী আকবর, রহমুদ্দিন, রাশেদ, জব্বারকেও সদস্য করা হয়েছে যারা সাবেক সংসদ গিয়াসউদ্দিন ও তার ছেলে কাউন্সিলর সাদরিলের সাথে নির্বাচন করেছে। বিএনপি’র বিভিন্ন প্রগ্রামে যাদের ছবি ফেসবুকে ঘুরপাক খাচ্ছে। আলী আকবরের বিরুদ্ধে জামাতের সেল্টারদাতার অভিযোগ রয়েছে। যারা আ’লীগের কোন কর্মসুচীতে কোনদিন ছিলো না, সামাজিক কোন কাজেও ছিলোনা, সেই সকল বিএনপি নেতাদের সদস্য করা হয়েছে শুধুমাত্র মুখ চিনা আর আতœীয়তার কারনে। সহ-সাংগঠনিক করা হয়েছে শরীফকে। এই শরীফকে আন্ত: জিলা কমিটি থেকে সদস্য পদ দেয়া হয়নি। কয়েকজন আ’লীগ নেতা ক্ষোভের সাথে জানান, যাচাই বাছাই না করেই কমিটি অনুমোদন দেয়া হয় কিভাবে। বিষয়টি আমরা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি ও কমিউনিটি পুলিশিং এর সভাপতিকে জানাবো। আরেক জন জানান, সাবেক সভাপতি বীরমুক্তি যুদ্ধোর সন্তান এ্যাড শহিদুলকে বর্তমানে কমিটিতে সদস্য পদও দেয়া হয়নি। এর কারন কি? এলাকার বিতর্কিত লোকদের বাদ দিয়ে যারা আ’লীগের নিবেদিত প্রান ও নির্ভেজাল তাদের দিয়ে কমিটি গঠন করার কথা থাকলেও আ’লীগের অনেক ত্যাগী নেতাকে কমিটিতে স্থান দেয়া হয়নি। ব্যক্তিগত শক্রতাকে কাজে লাগিয়ে অনেকের নাম ইচ্ছা করে কমিটি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। আমরা এর নিন্দা জানাই। একজন আ’লীগ নেতা জানান, কমিটির বিষয়ে আমরা কমিটির উপদেস্টা কয়েকজনের সাথে কথা বললে তারা জানায়, তাদেরকে না জানিয়ে কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আমরা বিষয়টি দেখছি। উল্লেখ্য, আলহাজ্ব কবীর হোসেনকে সভাপতি এবং নজরুল ইসলামকে সাধারন সম্পাদক করে ৫নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি অনুমোদন করা হয়েছে। গত শনিবার কমিটি অনুমোদন প্রদান করা হয়।






Related News

Comments are Closed