Main Menu

ঢাকা-চট্রগ্রাম ও সিলেট মহাসড়কে ছিনতাই ও চাঁদাবাজি রুখতে ডিআইজির জিরো টলারেন্স ঘোষনা


‘সড়কে ছিনতাই ও চাঁদাবাজি রুখতে জিরো টলারেন্স ঘোষনা দিয়ে বাংলাদেশ পুলিশ ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান বলেছেন, কোন শ্রমিক সংগঠন, কোন ব্যক্তিবর্গ, কোন দল গোষ্ঠি ও কোন চাঁদাবাজ চক্র চাঁদা দাবি করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। এ চাঁদাবাজ চক্রের সাথে কোন পুলিশ সদস্য জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মঙ্গলবার দুপুরে আসন্ন ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড, শিমরাইল, কাাঁচপুর মদনপুর ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের যানজট ও সার্বিক পরিস্থিতি পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে এক প্রেস ব্রিফিং এ তিনি এ কথা বলেন। ডিআইজি হাবিবুর রহমান আরো বলেন, ব্রুল ফিতর উপলক্ষে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম ও সিলেট অঞ্চলের বিভিন্ন জেলার অধিবাসীরা এই হাইওয়ে দিয়ে যাতায়াত করবে। তাই আমরা ঢাকা রেঞ্জ পুলিশের পক্ষ থেকে নারায়ণগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নরসিংদী জেলা পুলিশের ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ঘরমুখী মানুষ যাতে নিরাপদে নির্দিষ্ট সময়ে শান্তিতে তাদের বাড়িঘরে গিয়ে ঈদ করতে পারে তার জন্য জেলা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশ যৌথভাবে কাজ করছে। এবার শোলাকিয়ার এবং এই এলাকার সকল মেস, হোটেল, বাসা-বাড়িতে আগাম তল্লাশী ও গোয়েন্দা তৎপরতা রয়েছে। এমনকি ঢাকা রেঞ্জ এলাকার প্রতিটি জায়গায় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। দিন কিংবা রাতে যেকোন সময়ে সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা দিতে পুলিশের বিশেষ ব্যবস্থা রয়েছে। তিনি বলেন, এবারের সবচেয়ে বড় চমক হচ্ছে, এই এলাকা ও চট্টগ্রাম, সিলেট এলাকার জনগণের জন্য প্রধানমন্ত্রী দ্বিতীয় মেঘনা ও মেঘনা-গোমতি সেতু উদ্বোধন করে দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী এই ঈদ উপহারের জন্য অন্য যেকোন ঈদের চেয়ে এবার নির্বিঘেœ ঈদ যাত্রা করতে পারবে মানুষ। এ ছাড়াও জঙ্গি হামলা প্রসঙ্গে ডিআইজি হাবিবুর রহমান বলেন, জঙ্গি হামলার কোন সুনির্দিষ্ট আশঙ্কা এখন পর্যন্ত পুলিশের কাছে নেই। তারপরও সেই সমস্ত বিষয় মাথায় রেখে শুধুমাত্র শোলাকিয়া নয় সারা বাংলাদেশেই একটি নিরাপত্তা পরিকল্পনা রয়েছে। যেকোন ধরণের ঘটনা মোকাবেলা করতে পুলিশ প্রস্তুত রয়েছে আর কোন ধরণের ঘটনা যাতে না ঘটে সে ব্যাপারেও গোয়েন্দা নজরদারী রয়েছে। এ সময় অতিরিক্ত ডিআইজি মো. আসাদুজ্জামান, জেলা পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মনিরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) আব্দুল্লাহ্ আল মামুন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিবি) সুবাস চন্দ্র সাহা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) মো. নূরে আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (্ক অঞ্চল) মেহেদী ইমরান সিদ্দিকী, জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মকর্তা (ডিআইও-২) মো. সাজ্জাদ রোমন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (সার্বিক) মীর শাহীন শাহ্ পারভেজ, বন্দর থানার ওসি(সার্বিক) রফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন ।######






Related News

Comments are Closed