Main Menu

মানহীন অপরিপক্ব শিক্ষক দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে জমজমাট কোচিং বাণিজ্য।

হাবিবুর রহমান, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ শ্রীনগরে আনাচে কানাচে যত্রতত্রভাবে গড়ে উঠেছে
কোচিং প্রতিষ্ঠান। এসব কোচিংয়ে পাঠদান করেন
মানহীন ও বিষয়ভিত্তিক অপরিপক্ব শিক্ষকরা। নানা
ধরনের মুখরোচক অফার দিয়ে কোচিং বাণিজ্যের
সাথে জড়িত এসব শিক্ষকরা অভিভাবকদের ভুলভাল
বুঝিয়েই জোগার করছে শিক্ষার্থী। মুখরোচক অফারে
আগ্রহী হয়ে এসব কোচিংয়ে পড়ে শিক্ষা জিবনে চরম
বিপদ ডেকে আনছে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।
কোচিংয়ের নামে এক জায়গায় সব বিষয় পড়ার সুবিধার
কারণেও শিক্ষার্থীরা এসব মানহীন কোচিংয়ে পড়েন
অনেকটা না বুঝেই। শিক্ষার্থী প্রতি মাসে প্রায়
১৫০০ টাকা করে বেতন আদায় করার মাধ্যমে বিপুল
পরিমাণ কোচিং বাণিজ্য করা হচ্ছে। এসব কোচিং
বাণিজ্যের সাথে প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরাও জড়িত।
শ্রেণিকক্ষে ঠিকমত পাঠদান না করার ফলেই
শিক্ষার্থীরা কোচিংয়ে ঝুঁকছে বলেও অনেকে মনে
করেন। শ্রীনগরে মোট ২৩ প্রতিষ্ঠানে ২০১৯ সালের
এসএসসি ফলাফলে দেখা যায় ৩২০৭ জন অংশগ্রহণ
করে পাশ করেন ১৮৬৪ জন এবং ফেল করেন ১৩৪৩
জন। বিপুল পরিমাণ শিক্ষার্থী ফেল করার মূলে রয়েছে
কোচিং বাণিজ্য। কোচিংয়ের নামে ৩০ জনের অধিক
শিক্ষার্থীকে একত্রে পাঠদান দিয়ে তাদের ভবিষ্যৎ
নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে এসব কোচিং প্রতিষ্ঠান।
কোচিং বাণিজ্যের মূল টার্গেট মোটা অংকের অর্থ
হাতিয়ে নেয়া। সাংবাদিক সহ সকল সচেতন মহলকে এক
হয়ে প্রশাসনের সহায়তায় শ্রীনগরের আনাচে কানাচে
থেকে কোচিং প্রতিষ্ঠান বন্ধ করার দাবি এখন পুরো
শ্রীনগর জুড়েই।






Related News

Comments are Closed