রোহিঙ্গাদের ভাষানচরে স্থানান্তর নতুন সংকট তৈরি করবে

ভাষানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর বিষয়ে সরকারকে সতর্ক করেছেন জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি। তার মতে, এ স্থানান্তর নতুন সমস্যা তৈরি করবে। খবর আল-জাজিরার।

সম্প্রতি ভাষানচর পরিদর্শন করেছেন ইয়াংহি লি। এ ভিত্তিতে তিনি জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদকে সোমবার জানান, বঙ্গোপসারের ওই দ্বীপটি বাস্তবেই বাসযোগ্য কিনা সে বিষয়ে সন্দিহান তিনি।

ইয়াংহি লি বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের সম্মতি ছাড়া অপরিকল্পিত স্থানান্তর করা হলে নতুন সংকট সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।’ বাংলাদেশ সরকার বলছে, আসছে এপ্রিলে ২৩ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থীকে ভাসানচরে স্থানান্তরের করা হবে।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের এ সভায় অংশ নিয়ে রোহিঙ্গা অ্যাক্টিভিস্ট নে সান লুইন বলেন, ভাসানচরে কেউ যেতে চাইবে না। একমাত্র বল প্রয়োগের মাধ্যমেই তাদের সেখানে নেওয়া সম্ভব।

চলতি বছরের জানুয়ারিতেও তাড়াহুড়ো করে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর না করার আহ্বান জানিয়েছিলেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি। তিনি বলেন, ভাসানচরে সাইক্লোন হলে কি পরিস্থিতি তৈরি হবে তা না দেখে এবং দ্বীপটির সুযোগ সুবিধা যাচাই না করে কোনওভাবেই তাড়াহুড়ো করে রোহিঙ্গাদের সেখানে পাঠানো উচিত হবে না।

তিনি বলেন, ‘তাড়াহুড়ো করে তাদের সেখানে পাঠানো হলে মিয়ানমারের কাছে ভুল বার্তা দেওয়া হবে। মিয়ানমার এমন বার্তা পেতে পারে যে, বাংলাদেশেই রোহিঙ্গাদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী ব্যবস্থা হয়ে যাচ্ছে। ফলে তাদের ফেরত না নিলেও চলবে।






Related News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.