Main Menu

কালীগঞ্জে কামলার হাটে নিজেদের লেখা পড়ার খরচ জোগাতে কলেজ ছাত্রদের শ্রম বিক্রি

জাহিদুর রহমান তারিক,ঝিনাইদহঃ ঝিনাইদহ কালীগঞ্জ হাটে এবার কলেজ ছাত্র রাব্বুল, ইমরান, রিপন, শাকিলসহ ছয় বন্ধ। কালীগঞ্জে কামলার হাটে বিক্রি হয়েছে ধান কাটার (কামলার) কাজ করার জন্য। শুক্রবার কালীগঞ্জের কামলার হাটে এভাবে ৩ শতাধিক ‘মানুষ বেচা-কেনা’ হয়। মৌসুম ভিত্তিক ধান কাটা কামলা হিসেবে তারা কাজ করে।দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কাজ করার জন্য তারা ছুটে আসে কালীগঞ্জে। ইরি-বোরো ধান কাটার মৌসুমে সবার ধান পেকে যাওয়ায় ক্ষেত মালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে কেনা-বেচার ধুম পড়েছে। কালীগঞ্জের কলেজ সড়কের মুরগি হাট এলাকায় কামলার হাটে গিয়ে দেখা যায়, শত শত মানুষের বেচা-কেনা হচ্ছে। অসংখ্য ধান ক্ষেত মালিক তাদের কষ্টের উৎপাদিত ধান ঘরে তুলতে জন চুক্তি করে নিয়ে যাচ্ছে। কেউ প্রতিদিনের চুক্তিতে, আবার কেউ বিঘা প্রতি চুক্তিতে আবদ্ধ হয়েছেন। রাব্বুল, ইমরান, রিপন, শাকিল, জামির ও সবুজ ৬ বন্ধু তিন বেলা খাওয়াসহ এক বিঘা ৩ হাজার ৬’শ টাকা চুক্তিতে বিক্রি হয়েছেন। এদের মধ্যে ৫ জন স্থানীয় কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। রাব্বুল জানায়, তারা সবাই কৃষি পরিবারের ছেলে। লেখাপড়ার পাশাপাশি পরিবারে মাঝে মধ্যে কাজ করে থাকেন। বর্তমান ধান কাটা মৌসুমে নিজেদের লেখা পড়ার খরচ জোগাতে ধান কাটার জন্য শ্রম বিক্রি করছে। রাব্বুল ও শরিফুলদের মতো শত শত শ্রমিক তাদের শ্রম বিক্রি করার জন্য দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ছুটে এসেছে কালীগঞ্জের হাটে। শুক্রবার ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শ্রমের এ বেচা-কেনা হতে দেখা যায়। যাদের অধিকাংশই কুষ্টিয়া, ঈশ্বরদী, পাবনা, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, মাগুরা ও ঝিনাইদহ এলাকার মানুষ বলে জানা যায়।






Related News

Comments are Closed