Main Menu

তরুণ ও দক্ষ নেতৃত্ব হিসেবে না’গঞ্জ জেলা বিএনপি’র সা. সম্পাদক পদে আজিজুল হককে দেখতে চায় তৃণমূল বিএনপি’র নেতাকর্মীরা

bnp-logo_22_1_3_1_3_4aziz-picস্টাফ রিপোর্টারঃ চলতি বছরের নভেম্মরের মধ্যে না’গঞ্জ জেলা বিএনপি’র কমিটি গঠনের সম্প্রতি ঘোষণা আসায় জেলা নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি নড়ে-চড়ে বসেছেন জেলার তৃণমূল নেতা-কর্মীরা। জেলা বিএনপিকে ঢেলে সাজানোর যে কর্মপরিকল্পনা হাতে নিচ্ছে বিএনপির নীতি নির্ধারকরা, তার পালে সুবাতাস বইতে পারে যদি দক্ষ ও দলের দুঃসময়ে যারা দল ত্যাগ করেননি ও সংস্কারবাদীর তকমা লাগাননি, এমন ব্যক্তিদের যদি যোগ্য পদে অধিষ্ঠিত করা হয়্। এ ধরণের পরিকল্পনা নেয়া হলেই কেবল বিএনপি’র অস্তিত্ব নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে থাকবে, নতুবা দিনে বিএনপি ও রাতে আ’লীগার হওয়া ছাড়া নেতা-কর্মীদের বিকল্প থাকবে না। এ ধরনের বিষয় যখন ঘনিভূত হচ্ছে জেলার রাজনীতিতে, তখন দলের শীর্ষ পর্যায় থেকেই একটি অংশ এক সময়কার তুখোর ছাত্র নেতা আজিজুল হককে জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব দেবার পক্ষে মতামত দিয়ে যাচ্ছেন। এদিকে জেলার সোনারগাঁও, বন্দর, সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের সাথে আজিজুল হকের বিষয়ে কথা বলায় তারা সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন এবং এ প্রতিবেদককে জানান ‘দক্ষ ও তরুণ মুখ হিসেবে আগামী দিনের জেলা বিএনপিতে আজিজুল হকের জায়গা হোক, তা আমরা মনে-প্রাণে কামনা করছি। দলের দুঃসময়ে তিনি দলের পাশে ছিলেন এবং দলের একজন একনিষ্ঠ কর্মী হিসেবে আমরা আজিজকে চিনে থাকি। দীর্ঘ দিনের না’গঞ্জ জেলা, মহানগর ও নগর বিএনপি’র মধ্যে চলমান মতভেদ দূরীকরণ ও মনমালিন্যতার অবসান ঘটিয়ে বিএনপি’র রাজনীতিকে বেগবান করা আজিজের পক্ষে সম্ভব বলে আমরা মনে করি। ছাত্রদলের মত একটি বড় সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত থাকা, শিক্ষিত, ক্লিন ইমেজধারী হিসেবে আজিজ আমাদের বিবেচনায় জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পদক হলে দলের পথচলা আরও সুগম হবে এবং অত্র জেলার রাজনীতিতে বিএনপি আবারও ঘুরে দাড়াতে পারবে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রনেতা হিসেবে দল আজিজকে জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দিলে তিনি দলকে নিরাশ করবেন না বলে আমরা আস্থা রাখতে পারি’।
উল্লেখ্য আজিজুল হক আজিজ দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁও) আসনের বিএনপি থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। কিন্তু বিএনপি নির্বাচন থেকে সড়ে দাড়ানোর কারনে শেষ পর্যন্ত তার প্রার্থী হয়ে উঠা হয়নি। আজিজুল হক আজিজ কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহ-সম্পাদক ছিলেন। এছাড়াও তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্য্য সেন হলের ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন। তিনি বর্তমানে সোনারগাঁওয়ের বিএনপি’র রাজনীতিতে সক্রিয় আছেন। তিনি বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামে বিএনপিকে সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আজিজুল হক আজিজ ১৯৯৫ সালে বিএনটির রাজনীতিতে ছাত্রদলের কর্মী হিসেবে যোগ দেন। তারপর থেকে তিনি ছাত্রদলের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন পদে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সম্মেলনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি’র কমিটি গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে। বিএনপি’র সিনিয়র নেতৃবৃন্দের বরাত দিয়ে বিশ্বস্ত সূত্র মারফত জানা যায়, ২০০৯ সালের ২৫ নভেম্বর সম্মেলনের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি হিসেবে এ্যাড. তৈমুর আলম খন্দকার ও সাধারণ সম্পাদক পদে কাজী মনিরুজ্জামান মনির নির্বাচিত হন। দীর্ঘ ৭ বছরেও তারা পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেননি। আগামী নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটিতে আজিজুল হক আজিজ ছাড়াও মনিরুল ইসলাম সেন্টু, দিপু ভূঁইয়া ও এসএম ইকবাল সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হওয়ার গুঞ্জন উঠেছে। এ বিষয়ে আজিজুল হক আজিজ বলেন, ‘আমি নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী। সে লক্ষে আমি সকল প্রকার কাগজপত্র কেন্দ্রে জমা দিয়েছি। আশা করছি দল আমাকে মূল্যয়ন করে কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপিকে সুসংগঠিত করার সুযোগ করে দিবেন। আমি সকল নেতাকর্মীদের সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করছি’।






Related News

Comments are Closed