Main Menu

রূপগঞ্জে সৌর বিদ্যুতের আলোয় পাঠদান, আড্ডা প্রতিরোধে রাতে কোচিং

rupgonj-pho-1-dt-21-10-2016রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি ঃ দেশে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি, বাজে আড্ডা, নেশা থেকে দুরে রাখতে ও ভালো ফলাফলের জন্য নারায়ণগঞ্জের রুপগঞ্জ সদর ইউনিয়নের আব্দুল হক্ব ভ’ইয়া ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের উদ্যেগে রাতের বেলায় সৌর বিদ্যুতের আলোয় শিক্ষার্থীদের বাড়তি কোচিং করানো হচ্ছে। এ ব্যতিক্রমী উদ্যেগকে স্বাগত জানিয়েছেন অভিভাবক থেকে শুরু করে স্থানীয় বাসিন্দারা।
স্কুল কর্তৃপক্ষ জানান, বিদ্যূতের ঘনঘন লোডশেডিং ও খরচ বাঁচাতে উপজেলা প্রশাসনের দেয়া সৌর বিদ্যুতের আলোয় সন্ধ্যা হলেই শুরু হয় বাড়তি পাঠদান। এ পাঠদান চলে সন্ধ্যা হতে রাত ১০ টা পর্যন্ত। প্লে থেকে একাদশ শ্রেণি পর্যন্ত ২ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী এ প্রতিষ্ঠানে পাঠদান করছে। এদের মধ্যে প্রতিষ্ঠানের কাছাকাছি গ্রামের শিক্ষার্থীদের জন্য বাধ্যতামূলক কোচিং সেবার ব্যবস্থা করা হয়েছে। হতদরিদ্র ও মেধাবীদের বিনামূল্যে এ কোচিং চললেও ধনীদের সন্তানরা সেচ্চায় অর্থ দিয়ে এ কোচিং পদ্ধতিতে যোগ দিয়েছেন ভালো ফলাফলের আশায়।
রাতের বেলায় কোচিং করতে আসা এই্চ এস.সি‘র ছাত্র পিয়াল হাছান ফয়সাল জানায়, বাড়িতে গেলে মা বাবাকে ফাঁকি দিয়ে পাঠদানের কারচুপি করে অনেক শিক্ষার্থী। রাতের বেলায় কোচিং করাতে অনেক শিক্ষার্থী এখন ভাল ফলাফল করছে। আমিও রাতের কোচিং করে এস এস সিতে ভাল ফলাফল করেছিলাম।
দরিদ্র শিক্ষার্থীর অভিভাবক আছমা বেগম বলেন, আমাদের বে-সরকারী স্কুলে পড়ানোর খরচ নেই। তার উপর কোচিং বিষয়টা বাড়তি বোঝা মনে করতাম। বাড়িতে বিদ্যুৎ নেই, স্কুলে সৌর বিদ্যুতের আলোতে আমার ছেলে লেখা পড়া করে।
হারিন্দা এলাকার অভিভাবক মুসা মোল্লা বলেন, বাড়তি টাকা দিয়ে বাড়িতে প্রাইভেট ,কোচিং পড়াতে যাদের অর্থে কুলায় না তারাই স্কুলে সেচ্চায় কোচিং করে। আজে বাজে আড্ডা প্রতিরোধে অভিভাবকদের ডেকে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। আমরা এ পদ্ধতিতে স্বস্থ্যি প্রকাশ করি।
মধূখালী এলাকার অভিভাবক তাহছিনা নিশাত বলেন, টিভি ও ফেসবুকের ব্যস্ততায় এখন অনেক মা বাবাই তাদের সন্তানদের দিকে খেয়াল কম রাখে। বাড়িতে পড়ায় বসতে চায় না। এছাড়া বাজে আড্ডা দেয়। এসব প্রতিরোধে স্কুলে বাড়তি ক্লাস নেয়া আমাদের জন্য মঙ্গলজনক।
স্কুল কর্মচারী গোলবক্স ভুইয়া বলেন, রাতের বেলায় স্কুলে বাড়তি ক্লাস করার পরে শিক্ষকদের একটি টিম মেয়ে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে পৌঁছে দেন। অনেক অভিভাবক শিক্ষার্থীর জন্য রাতের খাবার নিয়ে আসেন। আমরাও বাড়তি শ্রম দিয়ে প্রতিষ্ঠান ও এলাকার কথা চিন্তা করে সহযোগীতা করছি।
জাঙ্গীর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক সাখাওয়াত হোসেন ভুইয়া বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোচিং করানো ভাল নয়। তবে আব্দুল হক্ব ভুইয়া ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে যে কোচিং হয় মূলত এটা কোচিংয়ের আঁওতায় পড়ে না। এটা প্রতিষ্ঠানের ভাল ফলাফলের জন্য বাড়তি নজরদারী মাত্র।
এদিকে ভাল ফলাফল করার জন্য সম্প্রতি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে সরকার আলাদাভাবে মূল্যায়ন করায় এ পদ্ধতি অবলম্বন করেছেন বলে জানান প্রতিষ্ঠান পরিচালক মনিরুল হক্ব ভ’ইয়া। এ সময় তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাড়িতে শিক্ষার্থীরা পড়তে বসতে চায় না। সব সময় টিভি, ফেসবুকে সময় কাটায়। অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করে নামে মাত্র ফি নিয়ে এ কোচিং কর্মসূচীর আয়োজন করেছি। উদ্যেশ্য হলো পরীক্ষায় ভাল ফলাফল আদায় করা। এ সময় সৌর বিদ্যুতের ব্যবস্থা করায় উপজেলা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।
ইউপি চেয়ারম্যান আবু হোসেন ভুইয়া রানু বলেন, দেশে জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধি, বাজে আড্ডা, নেশা থেকে দুরে রাখতে ও ভালো ফলাফলের জন্য প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই এ পদ্ধতি গ্রহন করা উচিত।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা ইসলাম বলেন, সৌর বিদ্যুতের আলো কাজে লাগিয়ে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাতে লেখা পড়া করাচ্ছে শুনে ভাল লাগলো। যেভাবে যুবকরা বিভিন্ন বাজে আড্ডায় ঝুঁকে যাচ্ছে তাতে এ প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগকে স্বাগত জানাই।






Related News

Comments are Closed