Main Menu

আপনারা বুরকিনি পরুন জরিমানা আমি দেব

160815163523-corsica-burkini-অনলাইন ডেস্ক

ফ্রান্সে স্থায়ীভাবে বুরকিনি পোশাক নিষিদ্ধের জন্য রাজনীতিবিদরা যখন উঠেপড়ে লেগেছেন, ঠিক তখনই নারীদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের বুরকিনি পরার আহ্বান জানিয়েছেন রাচিদ নেক্কাজ রামের এক ধণাঢ্য ব্যবসায়ী। তিনি বলেন, আপনারা বুরকিনি পরিধান করুন যত অর্থ জরিমানা দিতে হয় তা আমি দেব।

আলজেরিয়ান উদ্যোক্তা ও মানবাধিকার কর্মী রাচিদ নেক্কাজ বলেন, নারীদের পোশাক পছন্দের ক্ষেত্রে স্বাধিনতা দেওয়ার জন্য আমি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

সিএনএন জানায়, বিকিনির পরিবর্তে ব্যবহৃত এক ধরনের সাঁতারের পোশাকের নাম বুরকিনি। মুখ, হাত ও পায়ের পাতা ব্যতীত সম্পূর্ণ দেহ আবৃত করা থাকে এ পোশাকে। ফ্রান্সে এর ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার পর দেশজুড়ে হু হু করে বিক্রি বাড়তে শুরু করেছে।

মুসলিম নারীদের পোশাকের সাংস্কৃতির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করলেও তিনি আরও বলেন, ইউরোপ কিংবা ফরাসি সংস্কৃতির সঙ্গে বোরকা বা নেকাবের ব্যবহার ঠিক চলে না। তবে অন্যের স্বাধীনতার ওপর ফরাসিদের হস্তক্ষেপ করাটাও সমীচীন নয়। এসব কারণে ২০১৩ সালে নেক্কাজ ফরাসি নাগরিকত্ব পরিত্যাগ করেন বলে জানায় সিএনএন।

এদিকে এএফপি জানায়, আইন ভঙ্গ করে বুরকিনি পরিধাণ করলে ফ্রান্সে সবোর্চ্চ ২০৫ ডলার পর্যন্ত জরিমানার বিধান জারি করা হয়েছে। দেশটির প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনালে বুরকিনির ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নিসে শহরের আদালতে সোমবার এই সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে দুই মানবাধিকার কর্মীর আবেদন বাতিল করে দেয়া হয়।

নিসেতে এ পোশাক পরলে ৪৩ ডলার জরিমানার আদেশ জারি করা হয়েছে। দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের ১৫টি শহরে সাময়িকভাবে বুরকিনি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে লেবানিজ বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ার ব্যবসায়ী আহেদা জানেত্তি বিবিসিকে জানান, বুরকিনি পোশাক নিয়ে আলোচনা শুরু হওয়ায় কারণে এর বিক্রি ২০০ শতাংশ বেড়ে গেছে। শুধু মুসলিম নারীরাই নয়, বিকিনিতে অভ্যস্থ অমুসলিম নারীরাও বুরকিনির প্রতি ঝুঁকছে।






Related News

Comments are Closed