Main Menu

বাবুগঞ্জে ফুটবল খেলা নিয়ে সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল:

বরিশালের বাবুগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা শেষে বাড়ি ফেরার পথে পরাজিত দল এবং তাদের সমর্থকদের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে চ্যাম্পিয়ন দল ও তাদের সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পরাজিত দলের সদস্য ও তাদের অর্ধশতাধিক সমর্থক আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাবুগঞ্জ খেয়াঘাটে এই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলার হাত থেকে নিজ এলাকার লোকজনকে রক্ষা করতে গিয়ে জাহাঙ্গীর নগর (আগরপুর) ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলামও আহত হন বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন।
এদিন বিকেল সাড়ে ৪টায় বাবুগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ মাঠে বাবুগঞ্জ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় এবং আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দুই দলের মধ্যে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সাইফুল ইসলাম জানান, সকালে চাঁদপাশা বায়লাখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয় দলকে ৩-০ গোলে হারিয়ে টুর্নামেন্টের ফাইনালে ওঠে আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয়। বিকেলে বাবুগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ মাঠে টুর্নামেন্টের ফাইনালে আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও বাবুগঞ্জ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় দল পরস্পরের মুখোমুখি হয়। খেলার প্রথমার্ধের ১৫ মিনিটের মধ্যে আগরপুর আলতাফ মেমোরিয়াল স্কুল ২-০ গোলে এগিয়ে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে বাবুগঞ্জ পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় ২টি গোল করে। এরপর বাবুগঞ্জ পাইলট দলের খেলোয়াড়রা তৃতীয় গোল করে।

সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেন, বাবুগঞ্জ পাইলট এক গোলে এগিয়ে থাকাবস্থায় তাদের (পাইলট) দর্শকরা উত্তেজিত হয়ে পড়ে এবং আগরপুর দলের খেলোয়াড়দের উপর আক্রমন শুরু করে। এ অবস্থায় আগরপুর দলের খেলোয়াড়রা নিরাপত্তাহীনতার কারনে খেলতে অস্বীকৃতি জানায়। এক পর্যায়ে তারা পাইলট স্কুল দলকে চ্যাম্পিয়ন মেনে রেফারি এবং আয়োজক কর্তৃপক্ষকে বলে মাঠ ত্যাগ করে।

আগরপুর ফেরার পথে বাবুগঞ্জ উপজেলা সদরের খেয়াঘাটে আলতাফ মেমোরিয়াল স্কুল দলের সদস্য এবং তাদের সমর্থকদের উপর লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায় পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় দলের খেলোয়াড় এবং সমর্থকরা। এ সময় তাদের রক্ষা করতে গিয়ে জাহাঙ্গীর নগর (আগরপুর) ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলামও আহত হন।

হামলার মুখে আগরপুরের কিছু খেলোয়াড় ও সমর্থক একটি ট্রলারে সুগন্ধা নদী পার হয়ে অপর পাড়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে বাবুগঞ্জ সদরের লোকজন আরেকটি ট্রলারে তাদের ধাওয়া করে মাঝ নদীতে মারধর করে বলে অভিযোগ করেন প্রত্যক্ষদর্শী রফিকুল ইসলাম রনি।

হামলায় আগরপুরের খেলোয়াড় ও সমর্থকসহ অর্ধ শতাধিক আহত হয় বলে দাবি আলতাফ মেমোরিয়াল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সদস্য সাইফুল ইসলামের। আহতদের মধ্যে অনেককে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। গুরুতরদের উজিরপুর ও গৌরনদী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন স্থানে ভর্তি করা হয়েছে।

বাবুগঞ্জ থানার ওসি আব্দুস সালাম মোল্লা জানান, খেলায় হার-জিত নিয়ে মাঠের মধ্যে একটু হাতাহাতি হয়েছিলো। কিন্তু পুলিশের হস্তক্ষেপে মাঠের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয় এবং শান্তিপূর্ণভাবে খেলা শেষ হয়। পরে আগরপুর দলের খেলোয়াড়রা বাড়ি ফেরার পথে খেয়াঘাট এলাকায় তাদের উপর হামলার খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। কিন্তু সরেজমিন গিয়ে পুলিশ কোন পক্ষকেই পায়নি। এ ঘটনায় অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে ওসি জানান।






Related News

Comments are Closed