Main Menu

সোনারগাঁয় দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত-১৫

উপজেলা প্রতিনিধিঃ
অধিপত্র বিস্তার ও ইউনিয়ন পরিষদকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার বারদী এলাকায় বৃহস্পতিবার বর্তমান চেয়ারম্যান জহিরুল হক ও অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী কামাল হোসেনের সমর্থকদের মধ্যে দু’দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের নারী সহ ১৫ জন আহত হয়েছে। এলাকায় দুপক্ষের উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো মূহুর্তে আবারো রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, বৃহস্পতিবার দুপরে উপজেলার বারদী ইউনিয়নের পরিষদের সামনে বর্তমান চেয়ারম্যান জহিরুল হকের সমর্থক আবু দাইয়ান মেম্বারের সঙ্গে অপর চেয়ারম্যান প্রার্থী ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য কামাল হোসেনের সমর্থক ইব্রাহিম হোসেন ইবুর কথা কাটাকাটি হয়। এর জের ধরে প্রথমে জহিরুল হকের উপস্থিতিতে তার সমর্থক আবু দাইয়ানের নের্তৃত্বে শফিকুল ইসলাম, ওবায়দুল হক, নকিব হোসেন ও মনির হোসেন সহ ১৫/২০ জনের একদল বাহিনী দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে হামলা চালিয়ে কামাল হোসেনের সমর্থক ইউপি সদস্য ইব্রাহিম হোসেন ইবু, সৈকত মিয়া, কামাল মৃধা, মনির হোসেন, বদরুদ্দিন মিয়া, আব্দুল আলী ও আব্দুল রহিমকে পিটিয়ে আহত করে। পরে কামাল হোসেনের সমর্থকরা একত্রিত হয়ে হামলা চালিয়ে জহিরুল হকের সমর্থক আজহারুল ইসলাম, লতিফ মিয়া, শরীফ মিয়া, জনি আহাম্মেদ, জাহাঙ্গীর মিয়াকে পিটিয়ে আহত কওে তাদেও ঘরবাড়ি ও দোকানপাঠে হামলা চালায়। হামলায় উভয় পক্ষের নারী সহ ১৫ জন আহত হয়। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করা হয়। সংঘর্ষের ঘটনার পর থেকে দুপক্ষই দেশীয় অস্ত্র নিয়ে মহড়া দেওয়ায় পুরো এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এ ব্যাপারে চেয়ারম্যান প্রার্থী কামাল হোসেন জানান, চেয়ারম্যান জহিরুল হকের নির্দেশে তার সমর্থকরা আমার সমর্থকদের পিটিয়ে আহত করেছে।

অপরদিকে জহিরুল হক জানান, সংঘর্ষের ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত নন। তার সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে তিনি শান্ত করেন।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর কাদের জানান, সংঘর্ষের ঘটনার খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।






Related News

Comments are Closed