Main Menu

লাভলি ও আমন্ত্রন সিনেমাহলে সিনেমার অন্তরালে নারী পতিতা ও নারী ব্যবসা রমরমা

নারায়ণগঞ্জ জেলা সোনারগাঁ থানাধীন কাচঁপুর এলাকায় লাভলী ও আমন্ত্রন সিনেমা হলে সিনেমার অন্তরালে নারী পতিতা ও মাদক ব্যবসা রমরমা। সিনেমা হল গুলোর অশ্লিন পোষ্টারে ছেয়ে গেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা সহ আসপাশের এলাকা। এসব পোষ্টার ও অশ্লিন সিনেমা পরিচারনা বন্ধের দাবীতে বিভিন্ন স্কুল ও কলেজের ছাত্র ছাত্রীরা মহাসড়কসহ লি্কং রোড এলাকায় মানববন্দন করেছে একাধিকবার। তারপরও থেমে নেই লাভলী ও আমন্ত্রন সিনেমা হলের অশ্লিন পোষ্টার ও সিনেমা পরিচালনা। সরজমিনে গিয়ে দেখাযায় লাভলী সিনেমাহলে বিভিন্ন বয়সের নারী পতিতা দিয়ে সিনেমা দেখতে আসা বিভিন্ন বয়সের ছেলেদের ঘন্টা হিসেবে সিনেমা হলের ভিতরে প্রবেশ করায় এবং অসামাজিক কাজে লিপ্ত করায়। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজার আলম জানায় কি করার আছে ? টিকেট বেশি বিক্রি করার জন্য এই পথ বেছে নিয়েছি। অশ্লিন সিনেমার পাশাপাশি পতিতা থাকলে টিকেট বেশি বিক্রি হয় বলে জানান ম্যানেজার আলম। এ ব্যাপারে প্রসাশন কিছু বলেনা জানতে চাইলে- আলম জানায় প্রসাশনকে ম্যানেজ করেই ব্যবসা করছি। কথা বলার এক পর্যায়ে আলম জানতে চায় আপনি কে এত কথা জানতে চান ? পরে এই প্রতিবেদক নিজেকে সাংবাদিক পরিচয় দিলে আলম পতিবেদকের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। আপনারা লিখে কি করবেন ? যা লিখার লিখেন যারা ব্যবস্থা নিবে তাদের ম্যানেজ করেই ব্যবসা করছি। তা না হলে ওপেন ভাবে ব্যবসা করছি কি ভাবে ? এবং এই প্রতিবেদককে অকথ্য ভাষায় কথা বলে। লাভলী হলের পাশের এক দোকারদারের সাথে আলাপকালে নাম প্রকাশ না করার সর্থে তিনি বলেন এখানে মাদকও নারী পতিতা আর নতুন কি ? এগুলো আছে বলেই নাকি এই সব সিনেমা দেখতে আসে। এখান থেকে বের হতেই চোখ পরে বিভিন্ন দোকানের কম্পিউটারের দিকে। প্রতিটি কম্পিউটারে ওপেন ভাবে থ্রি-এক্স নিজেরা দেখে এবং বিভিন্ন মানুষদের মোবাইলে লোড দিতে দেখা যায়। যেগুলোর ওপর বিভিন্ন সংস্থার মেজিস্ট্রেটরা অভিজান পরিচালনা করে জরিমানা সহ কারাদন্ড দিয়েছে দেশের অনেক জায়গায়। অথচ লাভলী সিনেমা হলের সামনে ওপেন ভাবে প্রায় ২০-২৫ টি কম্পিউটার বসিয়ে চালাচ্ছে তাদের এইসব অশ্লিন ব্যবসা। সাথেই রয়েছে কয়েকটি ক্যারাম বোর্ড। এখানেও নাকি চলে ক্যারামের নামে জুয়া ব্যবসা। এ খেলাকে কেন্দ্র করেই নাকি কয়েকদিন পরপর ঘটে মারামরির মত ঘটনা। এগুলো থেকে নাকি মাসোহারা নিয়ে থাকে ম্যানেজার আলম – বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়। লাভলী হল এলাকার আরেক ব্যক্তি জানায় প্রসাশন থাকতে এসব অসামাজিক কাজ চলে কি ভাবে? তাহলে কি আমরা ভেবেনেব লোকাল প্রসাশন বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করছে ? তাই সচেতন মহলের দাবী উর্ধতন কর্তৃপক্ষ লাভলী আলমদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন কি ?






Related News

Comments are Closed