Main Menu

মেঘনায় লঞ্চে তরুণীকে ধর্ষন, অস্ত্রসহ ৪ সন্ত্রাসী আটক

003মোঃ জাবেদ হোসেন ॥ চাঁদপুর মেঘনা নদীতে যাত্রীবাহী লঞ্চের কেবিনে এক তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষনের অভিযোগে নৌ ও ডিবি পুলিশ যৌথভাবে অভিযান চালিয়ে ২রাউন গুলিভর্তি রিভালবারসহ ৪ যুবককে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো ঢাকার জুরাইন এলাকার সুজন (২৫), রজ্জব (২৪), ইমরান (২৩) ও সাব্বির (১৯)। রোববার রাত পৌনে ৯টায় ঢাকা সদরঘাট থেকে মাদারীপুরের উদ্দেশে ছেড়ে আসা এমভি ‘পারাবর্ত-১৪’ লঞ্চে এই ঘটনা ঘটে। ধর্ষনের শিকার তরুনিকে উদ্ধার করে চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশের হেফাজতে রাখ হয়েছে বলে জানিয়েছে নৌ-পুলিশ।
চাঁদপুর নৌ-পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিএম নূরুজ্জামান ও পারাবত লঞ্চের স্টাফ এবং যাত্রী সূত্রে জানা যায়, রোববার রাত পৌনে ৯টায় মাদারীপুরের উদ্দেশে লঞ্চটি ঢাকা সদরঘাট থেকে ছেড়ে আসে। লঞ্চের ৩য় তলার ৩৩৭ নং ডাবল কেবিনে অবস্থান করে আটক সন্ত্রাসী এবং একই ৩লার পেছনে মাস্টার কেবিন ভাড়া নেয় দীনা আক্তার (১৯) সোহেল (২৫) নামের প্রেমিক যুগল। সন্ত্রাসীরা কেবিনে বসে মদপান ও গাঁজা সেবন করে নেশাগ্রস্থ অবস্থায় নিজেদের ডিবি পুলিশ পরিচয়ে তরুনীর কেবিন থেকে প্রেমিক সোহেলকে বের করে এনে বেদম মারধর করে ছাদের উপরে নিয়ে আটকে রাখে। কোনো কথা বললে গুলি করে নদীতে ফেলে দেয়ার ভয় দেখিয়ে। পালাক্রমে তরুনীকে কেবিনে আটকে রেখে ধর্ষনের চেষ্টা চালায়। তরুনীর সাথে ধস্তাদস্তি ও হট্টগোলের টের পেয়ে লঞ্চের কেবিন বয়রা ঘটনাটি মাষ্টার ও অন্যান্য স্টাফ এবং যাত্রীদের জানায়।
এসময় উপস্থিত সকলে সন্ত্রাসীদের কাছে ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে ওই তরুনী তাদের চাচাতো বোন হয় বলে দাবি করে। সন্ত্রাসীদের কথা সন্দেহ হলে যাত্রী ও স্টাফরা তাদের চেলেঞ্জ করে। এসময় সন্ত্রাসীরা গুলি করার ভয় দেখিয়ে কয়েকজনকে মারধরও করে। পরে বিষয়টি পারাবত-১৪ লঞ্চের সুপারভাইজারও মাষ্টার লঞ্চ মালিক সমিতিকে অবহিত করলে কতৃপক্ষ চাঁদপুর নৌ-পুলিশকে জানায়। তাৎক্ষনিক রাত ১২টার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিএম নূরুজ্জামান, নৌ-ফাঁড়ির ইনচার্জ মোশারফ হোসেন, ডিবির এসআই ফিরোজ, এসএসআই আহসানুজ্জামান লাবু সংঙ্গীয় ফোর্স চাঁদপুর লঞ্চঘাটে অবস্থান নিয়ে
প্রেমিকযুগলকে উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ ডিবি পরিচয়ধারী সন্ত্রাসীদের কেবিন তল্লাসী করে ২ রাউন্ড গুলিভর্তি দেশীয় একটি রিভালবার, বিদেশী মদের বোতল, গাঁজ ও কনডম জব্দ করে।
উদ্ধার হওয়া মাদারিপুর জেলার হুগুলপাতিয়া গ্রামের বাসিন্ধা সোহেল জানায়, সে ঢাকা জিঞ্জিরায় প্যান্টের দোকানে দর্জি কাজ করে। ওই এলাকার থাকার সুবাদে স্থানীয় দীনা আক্তারের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। প্রেমিকাকে বিয়ে করবে বলে সে বাবা মাকে মেয়েটিকে দেখাতে গ্রামের বাড়ি মাদারিপুরে যাওয়ার জন্য লঞ্চে উঠে। আটক সুজন জানায়, তারা ৪ বন্ধু মাদারীপুর বেড়াতে যাচ্ছিল। এই ঘটনায় চাঁদপুর মডেল থানায় অস্ত্র ও ধর্ষণ মামলা দায়ের করা হয়েছে।






Related News

Comments are Closed