Main Menu

পশ্চিম সানারপাড়ে দূর্বৃত্তের হাতে নির্মম ভাবে নিহত আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াসের কুলখানী

p1-16-01-16নিজস্ব সংবাদদাতা:
নারায়ণগঞ্জ জেলার সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সিমান্তবর্তী ডেমরা থানার পশ্চিম সানারপাড় এলাকায় দূর্বৃত্তের হাতে নির্মম ভাবে নিহত সারুলিয়া ইউনিয়ন ৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক গিয়াস (৪৮) এর পরিবারের উদ্যোগে তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় কুলখানী অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১৬ জানুয়ারী) বাদ জোহর পশ্চিম সানরপাড় এলাকাস্থ নিহত এনামুল হক গিয়াসের নিজ বাড়ীতে তার বড়ভাই হুমায়ুন কবির ও মরহুমের স্ত্রী নাসিমা আক্তারের সার্বিক তত্তাবধানে এ কুলখানী অনুষ্ঠিত হয়।
এসময় গত ৪০ দিন পূর্বে দূর্বৃত্তদের হাতে নৃশংস হত্যা কান্ডের শিকার নিহত এনামুল হক গিয়াসের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় কুরআন খানী,দোয়া মাহফিল ও গনভোজের আয়োজন করা হয়। উক্ত কুলখানী অনুষ্ঠানে নিহতের পরিবারের সকল সদস্যসহ ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী,এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ,শুভাকাংখী ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার কর্মজীবিরা অংশগ্রহন করে নিহতের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়ে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। এছাড়াও হত্যা কান্ডের ঘটনাটি ৪০ দিন অতিবাহিত হলেও আইন শৃ্খংলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এ হত্যা কান্ডের সাথে সম্পৃক্ত খুনীদের গ্রেফতার করতে না পারায় নিহতের পরিবার গভীর উদ্ভেগ প্রকাশ করেছেন। দ্রুত এই হত্যা কান্ডের মূলহোতাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য তদন্তকারী সংস্থার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।
উল্লেখ্য,গত বছরের ৪ ডিসেম্বর শুক্রবার দিবাগত রাতে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এনামুল হক গিয়াসকে জবাই করে নৃশংস ভাবে হত্যা করে দূর্বৃত্তরা। পরদিন শনিবার বেলা ১১ টায় পশ্চিম সানারপাড় তাঁতী পুকুরের দক্ষিনে একটি পরিত্যক্ত প্রাচীর ঘেরা খোলা জায়গায় তার লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়। মৃত গিয়াস ওই এলাকার মৃত আব্দুল মজিদ ভূইয়ার ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর শনিবার সকালে স্থানীয়রা গিয়াসের লাশ পড়ে থাকতে দেখে থানা পুলিশকে খবর দেয়। তবে প্রাথমিক ভাবে তাদের ধারনা তাকে অন্যত্র হত্যা করে গভীর রাতের কোন এক সময় ঐ নির্জন স্থানে ফেলে চলে যায়। তবে এ হত্যাকান্ডের ব্যাপারে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা কোন প্রকার সঠিক তথ্য দিতে পারেনি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে থানা পুলিশের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি,র‌্যাব ও সিআইডি ক্রাইম সিনের একটি টিম পরিদর্শন করে। ঐদিনই বেলা ৩ টায় থানা পুলিশ ও সিআইডি ক্রাইম সিন মৃতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করে ।
জানা যায়, সারুলিয়া ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এনামুল হক গিয়াস পশ্চিম সানারপাড় এলাকায় তার মালিকানাধীন ২য় তলা বাড়ীতে দুই ছেলে উজ্জল,জুয়েল ও একমাত্র কন্যা হ্যাপী এবং স্ত্রী নাসিমা আক্তারকে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহনের পাশাপাশি এলাকার নিরীহ সাধারন মানুষের উপকার করে বেরাত। যেকেউ সমস্যায় পরে তার কাছে গেলে সে আপ্রান চেষ্টা করতো উপকার করার।
নিহতের স্ত্রী নাসিমা আক্তার জানায়, আমার স্বামী খুব ভাল মানুষ ছিল। সে সব সময় মানুষের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত রাখতো। কিছুদিন যাবৎ স্থানীয় কয়েকজন চিহ্নিত ভুমিদস্যু বিএনপি নেতা আমার স্বামীকে হুমকি দিয়ে আসছিল। তাদের বিরুদ্ধে ডেমরা থানায় কয়েকটি জিডি এন্ট্রি করা হয়েছিল। আমার স্বামী খুন হয়েছে ৪০ দিন পেরিয়ে গেছে কিন্তু পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে স্থানীয় লোকমান হোসেন নামক এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করলেও আর কাউকে আজ পর্যন্ত গ্রেফতার করতে পারেনি তাই আমরা হতাশ। অচিরেই এ খুনের সাথে জড়িত খুনীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার জন্য উর্ধ্বতন পুলিশ কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।






Related News

Comments are Closed