Main Menu

ভাবছেন না নাসির

২০১৪ সালের নভেম্বরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজে যখন দল থেকে বাদ পড়লেন, নাসির হোসেনের কণ্ঠে ছিল বিষণ্ন সুর। পরে বিশ্বকাপের দলে ফিরলেন। ২০১৫-এ বাংলাদেশ দলের সাফল্যযাত্রার অন্যতম সহযাত্রী ছিলেন তিনি। বহুদিন আবার নাসির ছিটকে পড়লেন দল থেকে। তবে এবার জিম্বাবুয়ে সিরিজের প্রথম দুই টি-টোয়েন্টির ঘোষিত দলে না থেকেও খুব একটা হতাশা দেখা গেল না তাঁরe36fc45817bd07e97beea2afe2d005cf-Nasir মধ্যে।

২০১৫ সালে বাংলাদেশের খেলা ১৮ ওয়ানডের ১৫টিতেই খেলেছিলেন। নিজেকে প্রতিনিয়ত তুলে ধরছেন দারুণ এক অলরাউন্ডার হিসেবে। এরই প্রতিফলন র‍্যাঙ্কিংয়েও। অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে হলো তাঁর বিশাল উত্তরণ। ২০১৫-এর শুরুতেও ওয়ানডের অলরাউন্ডার র‍্যাঙ্কিংয়ে ছিলেন ৮১ নম্বরে। এখন তাঁর অবস্থান ১৪ নম্বরে।
গেল বছর ব্যাট হাতে অবশ্য বড় ইনিংস খেলতে পারেননি। ১৫ ম্যাচে করেছিলেন ১৮৭ রান। যদিও অনুযোগের সুরে বলতেই পারেন, ‘ব্যাটিংয়ের সুযোগ আর পেলাম কোথায়!’ সুযোগ পেয়েছেন মাত্র ৯ ইনিংসে। ব্যাটিংয়ে অনেক ‘যদি-কিন্তু’ থাকলেও বোলিংয়ে পেয়েছেন যথেষ্ট সুযোগ। সে সুযোগ কাজে লাগিয়েছেন নিয়মিতই। অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন ঠিকঠাক। বল আগে করতে হতো কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্যই। তবে গত বছর সিরিজগুলোয় ‘চালিয়ে যাওয়ার’ জন্য নয়, অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা নাসিরকে ব্যবহার করেছেন ‘বিশেষজ্ঞ’ বোলার হিসেবেই। পুরো ক্যারিয়ারে তাঁর উইকেট ১৯টি। এর ১৬টিই পেয়েছেন ২০১৫-এ।
আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই দলের অন্যতম সেরা ফিল্ডার হিসেবে বিবেচিত হয়ে আসছেন। গত বছরেও ধরে রেখেছেন নিজের ‘সুনাম’। ১৪ ক্যাচে বাংলাদেশের ফিল্ডারদের মধ্যে তিনিই ছিলেন সবার ওপরে। খেলেছিলেন ৫টি টি-টোয়েন্টিই। তবুও নাসির কেন বাদ? প্রধান নির্বাচক ফারুক আহমদের ব্যাখ্যা, ‘নাসির নিয়মিত খেলোয়াড়। তার সামর্থ্য আমরা জানি। যেহেতু জিম্বাবুয়ে সিরিজে একটা সুযোগ এসেছে, চেষ্টা করছি কয়েকজন নতুন খেলোয়াড়কে দেখতে। এরপর বিশ্বকাপের আগে তো মূল দল তৈরি করবই।’
ফারুকের কথায় আভাস মিলছে, এ সিরিজে বাদ পড়া মানে সব শেষ নয়। এটা আসলে পরীক্ষা-নিরীক্ষার সিরিজ। বিষয়টি হয়তো নাসিরও বুঝতে পারছেন। এ কারণে খুব একটা উদ্বেগ প্রকাশ করলেন না। বরং বিষয়টা দেখছেন ইতিবাচকভাবেই, ‘চিন্তার কী আছে! যা হয়, ভালোর জন্য হয়।’
বাংলাদেশ দলে সুযোগ না পাওয়া অন্য খেলোয়াড়দের মতো নাসির চলে যাবেন ১২ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে (বিসিএলে)। আপাতত ঘরোয়া লিগে ব্যস্ত হলেও নাসির নিশ্চয় চাইবেন না দীর্ঘদিন দলের বাইরে থাকতে।






Related News

Comments are Closed