Main Menu

শীতের প্রকোপে বাড়ছে অগ্নিদগ্ধ রোগী

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ হঠাৎ করেই দক্ষিণাঞ্চলে জেঁকে বসেছে শীত। সেই সাথে দক্ষিণের গ্রাম অঞ্চলে বাড়তে শুরু করেছে দগ্ধ রোগীদের সংখ্যা। শীত শুরুর গত কয়েক দিনেই আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারন করতে গিয়ে দগ্ধ হয়ে মারা গছে বৃদ্ধা সহ ৩জন। এছাড়া আরো চার জনের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এরা সবাই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারী বিভাগে ভর্তি রয়েছে।
বরিশাল আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানাগেছে, বিগত কয়েক দিন যাবত দক্ষিণাঞ্চলে শৈত্য প্রবাহ বইছে। যে কারণে শীতের উষ্ণতাও বেড়ে চলেছে। সামনে শৈত্য প্রবাহের পাশাপাশি শীতের দাপট আরো বৃদ্ধি পাবে বলে ধারনা করছেন আবহাওয়া পর্যক্ষেকরা।
এদিকে দক্ষিণাঞ্চলের গ্রাম অঞ্চলগুলোতে হাটু কাপানো শীত নিবারন করতে গিয়ে আগুনে পুড়ে মৃত্যু এবং দগ্ধ হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। সর্বশেষ শীত নিবারন করতে গিয়ে গুরুতর অগ্নিদগ্ধ হওয়া এক বৃদ্ধা সহ দুই জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। শেবাচিম হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার অফিসের দায়িত্বশীল একটি সূত্র।
আগুনে পুড়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পরা ব্যক্তিরা হলো- ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার মগড় গ্রামের ওয়াজেদ মল্লিক’র স্ত্রী নূরজাহান বেগম (৮০) এবং বরিশাল মেট্রোপলিটন বিমানবন্দর এলাকার কাজি হোসেন’র ছেলে নাঈম (১৫)। এদের মধ্যে নূরজাহান বেগম গত ১৭ ডিসেম্বর অগ্নিদগ্ধ হয়ে শেবাচিমের বার্ন ইউনিটে ভর্তি হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল ১ জানুয়ারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এছাড়া ৩১ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ১২টার দিকে অগ্নিদগ্ধ হয়ে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি হয় বিমানবন্দর এলাকার নাঈম। এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার। গত কয়েকদিন পূর্বে আরো এক যুবক অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা গেছে বলে হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার অফিস সূত্র নিশ্চিত করেছে।
এছাড়াও বার্ন ইউনিটে খোঁজ নিয়ে দেখাগেছে, এখানে আরো চারজন রোগী চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। এরা চারজনই আগুন নিবারন করতে গিয়ে দগ্ধ হয়েছেন। এর মধ্যে দু’জন শিশু রয়েছে বলেও জানিয়েছেন বার্ন ইউনিটের দায়িত্বরত সেবীকারা।






Related News

Comments are Closed