Main Menu

প্রতীক পেলেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদিন

KHOKAN !চাঁদপুরের ছেংগারচর পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদিন খোকন অবশেষে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্ধ পেয়েছেন। সোমবার বিকেল সোয়া ৫টার দিকে উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ও ইউএনও মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থীর মনোয়নপত্র হাইকোর্টের রায়ের কপি পাওয়ার পর তার মনোনয়নপত্রটি গ্রহণ করে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্ধ দেন। এর ফলে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার সুযোগ হাতছাড়া হলো আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল আলম জর্জের।

এখন ছেংগারচর পৌরসভায় আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র রফিকুল আলম জজ এর নৌকা প্রতীক ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদিন খোকনের ধানের শীর্ষ প্রতীকের মধ্যে ভোটযুদ্ধ হবে। এ নিয়ে সোমবার সকাল থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিএনপির প্রার্থিতা আছে কিনা (ধানের শীষ প্রতীক পাবে নাকি) বাতিল হবে, আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী রফিকুল আলম জর্জ বিনাপ্রতিদ্বন্বিতায় নির্বাচিত হচ্ছেন এ নিয়ে চলছিলো নানা জল্পনা-কল্পনা।

সকল জল্পনা-কল্পনা অবসান ঘটিয়ে হাইকোর্টের রায়ের উপর ভিত্তি করে উপজেলা রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম সোমবার বিকেল ৫টা ১৫ মিনিটের সময় বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদিনকে ছেংগারচর পৌরসভার মেয়র প্রার্থী হিসেবে বৈধ হিসেবে ঘোষণা করে তার দলীয় প্রতীক ধানের শীর্ষ বরাদ্ধ দেন।

এর আেেগ উপজেলা ও জেলা রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক বাতিল হওয়া বিএনপির মেয়র মেয়র প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদীন খোকনের মনোনয়নপত্রটি বৈধ ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। রোববার (১৩ নভেম্বর) বিকেলে আদালত এ রায় দেন।

রোববার উচ্চ আদালতের বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ সারোয়ারুল আবেদিন খোকনের দায়ের করা রিটের শুনানি শেষে তাঁর প্রার্থিতা বৈধ বলে আদেশ দেন। প্রার্থীর পক্ষে আপিল শুনানি করেন আইনজীবী ছানা উল্যাহ মিয়া।

ছেংগারচর পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী সারওয়ারুল আবেদীন জানান, উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা এবং পরবর্তীতে জেলা প্রশাসক ও আপিল কর্তৃপক্ষ আমার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। এর বিরুদ্ধে আমি উচ্চ আদালতে রোববার আপিল করি। আপিল শুনানি শেষে বিচারপতি নাইমা হায়দারের আদালত আমার প্রার্থীতা বৈধ ঘোষণার আদেশ দেন।

উপজেলা রিটার্নিং অফিসার ও ইউএনও মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম বলেন, সোমবার বিকেলে বাতিল হওয়া বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নপত্র হাইকোর্টের রায়ে তার প্রার্থিতা বহাল ও তাকে ধানের শীর্ষ প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়ার কপি পাই। হাইকোর্টের রায় অনুযায়ী বিধি মোতাবেক তাকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। অপরদিকে আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব মোঃ রফিকুল আলম জর্জকে নৌকা প্রতীক বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। উভয় প্রার্থীকে আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোটযুদ্ধে আহবান জানানো হয়েছে।

এর আগে মনোনয়নপত্রে তথ্যের গড়মিল থাকার অভিযোগে গত ৫ ডিসেম্বর রিটার্নিং অফিসার ও মতলব উত্তর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মফিজুল ইসলাম মেয়র প্রার্থী সারওয়ারুল আবেদীনের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করেন। এরপর তিনি চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক ও আপিল কর্তৃপক্ষের কাছে আপিল করেন। গত ১০ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) প্রার্থীর উপস্থিতিতে শুনানির পর সেখানেও তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়।

মেয়র প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদীন বলেন, ‘৫ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের প্রথম দিনে মনোনয়নপত্রের সঙ্গে শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ ও আয়কর রিটার্ন জমা দিইনি বলে আমার মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। পরে আমি জেলা প্রশাসকের কাছে আপিল করেও সুবিচার পাইনি। সর্বশেষ হাইকোর্টে আপিল করলে আমার মনোনয়নপত্র বহাল রাখা হয়।’ মাঠে নামবেন কীভাবে। তবে, তার পক্ষে সাধারণ মানুষ ভোটের মাঠে সক্রিয় রয়েছেন বলে দাবি করেন তিনি।

ছেংগারচরে ২৬ হাজার ১৭৭ জন ভোটার রয়েছেন। এখানে মেয়র পদে এখন দুজন প্রার্থী নৌকা এবং ধানের শীষ প্রতীকের মধ্যে প্রতিদ্বন্বিতা করবেন। একজন হলেন আ’লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব রফিকুল আলম জর্জ এবং বিএনপির মনোনীত প্রার্থী সারোয়ারুল আবেদিন খোকন। আগামী ৩০ ডিসেম্বর এ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।






Related News

Comments are Closed