Main Menu

পতিতা ও মাদক ব্যবসায়ী এখন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী

aaaনিজস্ব প্রতিবেদক : দিনাজপুর জেলার বিরামপুর থানার কসবা সাগরপুর এলাকার আজম মন্ডল রানা ২০-২৫বছর আগে মুরগী চুরি করে ঢাকায় আসে ঢাকায় এসে হকারী বাদাম বিক্রি, বাসে বাসে পেপার-পত্রিকা বিক্রি করে এক সময় পতিতালয়ে দালাল হিসেবে নিয়োগ পায়। দালাল হিসেবে বিভিন্ন পতিতালয়ে পতিতার দালাল হিসেবে কাজ করে ১৮-১৯ বছর পড়ে আনুমানিক ২০১২ সালে আবাসিক হোটেল পতিতালয়ের মালিক হয় আজম মন্ডল রানা। নরসিংদি জেলার মাধবদী এলাকার বাস স্ট্যান্ডে হোটেল নিউ ঈগল নামে আবাসিক হোটেল দিয়ে শুরু করে হোটেল আবাসিক পতিতালয়ের ব্যবসা। আজম মন্ডল রানা এখন ৫টি আবাসিক হোটেলের মালিক। দেশের বিভিন্ন জায়গায় রয়েছে তার হোটেল। মাধবদীতে নিউ ঈগল, হোটেল আবাসিক ওয়েস্টার্ন প্লেস, যশোরের মাগুরা শহরে রয়েছে রানার একটি আবাসিক হোটেল, মাওয়া আড়িচা  ফেরিঘাট এলাকায় রয়েছে আরও একটি হোটেল ২০-২৫বছরের মুরগী চোর এখন কয়েক কোটি টাকার মালিক। আজম মন্ডল রানা বলেন মাগুরা হোটেলটির বিল্ডিং মালিক প্রধান মন্ত্রীর পি.এস সাইফুর জামান শেখর, রানা আরও জানায় আমার হোটেলটি শেখর ভাইকে দিয়ে উদ্ভোদন করাবো। ২০-২৫ বছর আগের মুরগী চোর এখন প্রতিতা ও মাদক ব্যবসায়ী নাকি চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। আজম মন্ডল রানা গর্ব করে বলে আমি ২০-২৫বছর আগে মুরগী চুরি করে গ্রাম ছেরেছি ঢাকায় এসে হকারী বাদাম বিক্রি, বাসে বাসে পেপার-পত্রিকা বিক্রি করে এক সময় পতিতালয়ে দালাল হিসেবে নিয়োগ পাই। দীর্ঘ ২২বছর এই পতিতালয়ের সাথে আছি। গত ৩ বছর যাবৎ হোটেল পতিতালয়ের মালিক হই। দেশের বিভিন্ন যায়গায় আমার ৫টি হোটেল রয়েছে। আমি হোটেল জগতের কিং হতে চাই। মুরগীর চোর রানা এত অর্থ বৃত্তের মালিক হল কি করে। কি তার আয়ের উৎস। শুধুই কি হোটেল ব্যবসা না কি তার ভিতরে রয়েছে না জানা অন্য কোন রহস্য। দুর্নীতি দমন কমিশন  প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ আজম মন্ডল রানার এত আয়ের উৎস কোথায় বিষয়টি দেখবেন কি?






Related News

Comments are Closed