সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুস সাত্তার মিয়া একজন সফল ওসি নারায়ণগঞ্জ জেলার

 সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (সার্বিক) আব্দুস সাত্তার মিয়া একজন সফল ওসি। তিনি সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় যোগদানের পর থেকে নিজ যোগ্যতা আর দক্ষতার বলে সিদ্ধিরগঞ্জের সচেতন ও সাধারণ এলাকাবাসীর মন জয় করেছেন। সেই সাথে একজন সফল ওসি হিসেবে যত গুণাবলী প্রয়োজন তা তিনি দেখাতে সক্ষম হয়েছেন। সিদ্ধিররগঞ্জ থানায় যোগদানের পর থেকে থানা এলাকা থেকে টাউট-বাটপার ও দালালদের দৌরাত্ম বন্ধ হয়েছে। পুলিশী সেবা গ্রহীতাদের এখন আর দূর্ভোগ পোহাতে হয় না। মাদক, সন্ত্রাস এবং জঙ্গীবাদ বিরোধী অভিযানেও সফল হয়েছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সার্বিক আব্দুস সাত্তার মিয়া। ওসি সার্বিককে সর্বাত্তক সহয়তা করে যাচ্ছেন ওসি (তদন্ত) নজরুল ইসলাম ও ওসি নাসির উদ্দিন সরকারসহ সকল অফিসার ও পুলিশ সদস্যরা।
ধনী-গরীব সবার জন্য ওসির দরজা সব সময় উন্মোক্ত করেছেন তিনি। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসা, ডাকাতি, চুরি, ছিনতাইসহ সকল অপরাধের বিরুদ্ধে সোচ্চার ভুমিকা পালন করছেন ওসি (সার্বিক) আব্দুস সাত্তার মিয়া। সিদ্ধিরগঞ্জ থানা এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে আলাপ কালে ওসি আব্দুস সাত্তার মিয়া বলেন, মানুষের সেবা ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা করা আমার দায়িত্ব। ওসি হিসেবে যতদিন কর্মরত আছি, ততদিন আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নিরলস ভাবে আমার দায়িত্ব পালন করবো। যাতে করে মানুষ শান্তিতে ঘুমাতে ও সস্থিতে থাকতে পারে। তিনি বলেন, আমি মানবতা ও মানবিক দৃষ্টিকোণ দিয়ে সকল সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে চাই। কেউ যদি কোথাও সন্ত্রাসী, মাদক ব্যবসা, চুরি, ডাকাতি, চাঁদাবাজি, ছিনতাই করে আর সে ঘটনা যদি পুলিশকে জানানো হয় তাহলে তথ্য দাতার পরিচয় গোপন রেখে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে দোষীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি (সার্বিক) আরো বলেন, অপরাধ দমনের পাশাপাশি উপজেলাকে মাদক মুক্ত করার প্রত্যয়ে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মাদকের সাথে জড়িতদের সমাজ থেকে নির্মুল করা হবে। মাদকের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স দেখানো হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাদকের সাথে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। ছাড় পাবে না নাশকতাকারীরাও। জঙ্গী, সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে পুলিশি অভিযান অব্যহত থাকবে। তিনি অপরাধ দমনে পুলিশকে সহযোগিতা করার জন্য সবার প্রতি আহবান জানান। এসময় তিনি বাংলাদেশ পুলিশের পোশাক পরিহীত কারো সাথে কেউ যদি ব্যবহার খারাপ করে সে যত বড় নেতাই হউক না কেন উচিৎ জবাব দেওয়া হবে। আমার অধিনস্থ কোন অফিসার বা সদস্য কোন অপকর্ম করছে বলে প্রমানিত হলে আমাকে জানালে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরো বলেন, আমি ২৩/০৫/১৭ইং তারিখে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় যোগদান করেছি, ইতিমধ্যে বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী লিখিত দিয়ে মাদক ব্যবসা ছেড়ে অন্য পেশা বেছে নিয়েছে, পূর্বের যে কোন সময়য়ের চেয়ে সিদ্ধিরগঞ্জে অপরাধ প্রবনতা কমে গেছে, এটা আমাদের বিরাট সাফল্য






Related News

Comments are Closed