নৌকা অটো ইজি বাইকে লাল-সবুজের পতাকা নিয়ে দেশে দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে শাহীন মিয়ার দল

আফজাল শরীফ জামালপুর প্রতিনিধি ॥জামালপুর জেলা সহ বিভিন্ন জেলা উপজেলা নৌকা অটো ইজি বাইক লাল-সবুজের পতাকা নিয়ে দেশে দেশে ঘুরে বেড়াচ্ছে শাহীন মিয়ার দল। গত মঙ্গলবার জামালপুর জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলায় নৌকার অটো ইজি বাইকে লাল-সবুজের পতাকা দেখে সে খানে মানুষ দলে দলে ওই নৌকা ইজি বাইকটি দেখার জন্য বকশীগঞ্জ পৌর এলাকার জনগণ ভিড় জমায়। নৌকা অটো ইজি বাইকের শাহীন মিয়া দুর্জয় বাংলার প্রতিনিধি আফজাল শরীফকে জানায়, আমরা দীর্ঘ ৭ (সাত) মাস যাবত নৌকা অটোইজি বাইক নিয়ে দেশে বিভিন্ন জেলা উপজেলা ঘুরে বেড়াচ্ছি। আমার মহান আর্দশ নেতা বাঙ্গালি জাতি পিতা বঙ্গবন্ধকে যদি পেতাম, তাহলে মাথায় নিয়ে ঘুরে বেড়াতাম। আজ বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু রেখে গেছেন তার লাল সবুজ পতাকা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে বর্তমান প্রজন্মের প্রতি আহবান জানাতে সেই পতাকা অটোইজি বাইকে বসিয়ে দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলা ঘুরছি। একথাগুলো বললেন, কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দক্ষিন বলদিয়া গ্রামে আঃ গফুরের ছেলে অটো রিকশা/ অটোইজি বাইক চালক শাহীন মিয়া। শাহীন মিয়ার দল আরো জানায়, আমাদের নিজস্ব তহবিল থেকে আমাদের এই নৌকা অটোইজি বাইকটি তৈরি করা হয়েছে। তিনি আরোও বলেন, আমাদের যেখানে রাত হয় সে খানেই আমরা রাত উদযাপন করি। আমাদের অটোইজি বাইকটি ব্যাটরি চালিত। দেশে কোথাও নৌকা অটোইজি বাইকটি যদি চার্জ শেষ হয়ে যায়। তাহলে নগত টাকা দিয়ে আমরা নৌকা অটোইজি বাইকটি চার্জ করি। আবার কোন উপজেলার আওয়ামী লীগের কোন নেতারা সাদরে আমাদের গ্রহণ করে নৌকা অটোইজি ব্ইাকটি চার্জ করে দেয়। শাহীন মিয়ার দলের ইচ্ছা বর্তমান প্রজন্মকে বাঙ্গালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর মতো দেশপ্রেমিক শেখ মুজিবুর রহমানের লক্ষ্য উদ্দেশ্যকে বাস্তবায়ন করার ইচ্ছা নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে শাহীন মিয়া দল।
তিনি আরো বলেন, যার জন্য আমরা আজ দেশে স্বাধীনভাবে ঘুড়ে বেড়াচ্ছি। যিনি দেশের মানুষের জন্য নিজের জীবন বাজি রেখে কতই না জুলুম-নির্যাতন, কারাভোগ করে ছেন। যে লোকটির জন্য আমরা আজ স্বাধীনতা পেয়েছি, সেই বাঙ্গালি জাতির পিতা মহাপুরুষ শেখ মুুজিবুর রহমানের জন্য কিছু করার ইচ্ছা থাকলেও সামথ্য নেই আমাদের। অভাবের সংসারে লেখা পড়া করার কোন সুযোগ জোটে নাই শাহীন মিয়ার দলের লোকদের।
তারা আরও বলেন, গ্রাম বাংলার মানুষের কি আমাদের মতো সবাই যে জাতির পিতাকে স্মরন করে এই কামনা করে জেলার বকশীগঞ্জ উপজেলা ত্যাগ করে শেরপুর জেলার ভ্যায়ে ঢাকার দিকে চলে যান তারা।
শাহীন মিয়া দলের আরো কয়েক জনের নাম মোঃ শাহীন মিয়া (৫০) আইযুব আলী (৪২), আবুল কালাম (৩৫), জহুরুল ইসলাম (৫৪) তারা বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা।

 






Related News

Comments are Closed